তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৯ অক্টোবর ২০১৫

তথ্যবিবরণী ১৯/১০/১৫

Handout                                                                                  Number: 3062

 

No alternative to improve quality of education

                                      ---Education Minister

 

Dhaka, 19 October:

 

          Education Minister Nurul Islam Nahid has said, the government led by Prime Minister Sheikh Hasina is relentlessly working to ensure global standard education for our new generation. He said there is no alternative to improving education quality for the survival in the globalised world. 

 

          The Minister said this while addressing the Global Education Dialogues at the British Council in Dhaka today.

 

          The Minister said, our priority is education and top priority is technical education. He said, due to negligence of the previous governments, a huge number of technical jobs in our garments and other industries were being grabbed by the foreigners. As the government of sheikh Hasina attaches top most priority to the need based technical education, those foreigners are now being replaced by our local experts, he added.

 

          The Worldwide British Council Chief Operating Officer Adrian Greer and British Council Bangladesh Country Director Barbara Wickham also spoke on the occasion.

 

          The 2-daylong Global Education Dialogues arranged by British Council in cooperation with National Skills Development Council of Bangladesh Government ends tomorrow.

 

          Teachers and educationists from Bangladesh, UK, India, USA, UAE and Vietnam are taking part in the event.

 

#

Saifullah/Afraz/Mosharaf/Abbas/2015/2217 Hours

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ৩০৬১

শান্তির দূত শেখ হাসিনা জঙ্গিবিরোধী যুদ্ধকমান্ডার 
                                        -- তথ্যমন্ত্রী  

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :
    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শান্তির দূত, উন্নয়নের কা-ারি ও জঙ্গিবাদবিরোধী যুদ্ধের কমান্ডার হিসেবে বর্ণনা করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
    মন্ত্রী আজ ঢাকায় শিল্পকলা একাডেমির চিত্রশালা মিলনায়তনে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আয়োজিত ‘তোমার কীর্তি মোদের গর্ব- বিশ্বসভায় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অনন্য সাফল্যগাঁথা’ শীর্ষক চিত্রকর্ম প্রদর্শনী ও আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।
    হাসানুল ইক ইনু বলেন, বঙ্গবন্ধু জাতির পিতা এবং তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা শান্তির দূত, উন্নয়নের কা-ারি ও জঙ্গিবাদবিরোধী যুদ্ধের কমান্ডার। একুশ শতকের প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ যেন মাথা উঁচু করে এগিয়ে যেতে পারে, সেজন্য তিনি জাতিকে প্রস্তুত করছেন।
    পার্বত্য শান্তিচুক্তির মাধ্যমে শান্তির পথে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার যে অগ্রযাত্রা শুরু, তা কখনো থেমে থাকেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, শান্তির পথযাত্রায় সন্ত্রাসী-জঙ্গিদের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার যুদ্ধে জাসদ সাথে রয়েছে।
    তথ্যমন্ত্রী বলেন, সংবিধান ও গণতন্ত্রকে হত্যাকারীদের হাত থেকে বাঁচানো, বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে উত্তরণ, খাদ্য নিরাপত্তা, বিদ্যুৎ-অবকাঠামো-তথ্যপ্রযুক্তি উন্নয়ন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলা করে শান্তি ও উন্নতির পথে দেশকে এগিয়ে নেবার মাধ্যমে বিশ্বে অনন্য রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন শেখ হাসিনা। 
    তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদকে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পথে সবচেয়ে বড় বাধা উল্লেখ করে বলেন, এ বাধা অতিক্রমে যুবসমাজকে অগ্রণী ভূমিকা নিতে হবে।
    আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা যা চান, যুবলীগও তাই চায়। আওয়ামী যুবলীগ বঙ্গবন্ধুর পতাকাবাহী এবং শেখ হাসিনার আদর্শধারী।
    সভায় আওয়ামী যুবলীগ নেতৃবৃন্দের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক হারুন উর রশিদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবর রহমান ও মাহবুবুর রহমান কিরণ বক্তৃতা করেন।

#


আকরাম/আফরাজ/মোশাররফ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/২১১৫ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                     নম্বর : ৩০৬০


যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় সাবকমিটির বিকেএসপি পরিদর্শন

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  
যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি গঠিত ১নং সাবকমিটির আহ্বায়ক নাঈমুর রহমান ও  কমিটির সদস্য মো. নূরুল ইসলাম তালুকদার আজ সাভারের বিকেএসপি’র সার্বিক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন । 
সাবকমিটি বিকেএসপিতে ৪৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নবনির্মিত বিশ্বের দি¦তীয় বৃহত্তম ইনডোর স্টেডিয়ামটিতে যথেষ্ট পরিমাণ ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা করা এবং ভিতরের পরিবেশকে ঠান্ডা রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে অনুশীলন উপযোগী করার সুপারিশ করে। 
পরিদর্শনকালে তাঁরা বিকেএসপির ছাত্র-ছাত্রীদের হোস্টেলের পরিবেশ উন্নত করা এবং গতানুগতিক খাবারের বাইরে পুষ্টি ও গুণগত মানসম্পন্ন দেশি ও বিদেশি খাবার অন্তর্ভুক্ত করে খাবারের তালিকায় বৈচিত্র্য আনার পরামর্শ প্রদান করেন। এ প্রতিষ্ঠানটিকে তার লক্ষ্য ঠিক করে মানসম্মত খেলোয়াড় তৈরি করতে ক্রিকেটসহ যে সমস্ত খেলার চাহিদা দেশে বেশি সেগুলোতে সিট সংখ্যা বৃদ্ধির ব্যাপারেও তাঁরা আলোচনা করেন।
সাবকমিটি বিকেএসপিকে আর্থিকভাবে স¦াবলম্বী করতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বিদেশি সাহায্য সংস্থাকে আর্থিকভাবে পৃষ্ঠপোষকতার  জন্য  আহ্বান জানানোর সুপারিশ করে ।
  পরিদর্শনকালে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব ও বিকেএসপি’র মহাপরিচালকসহ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট  ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
#

মিজানুর/আফরাজ/মিজান/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/১৯১০ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৯

বিজেএমসি ও বিটিএমসিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করা হবে
                                               -- বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  
    বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেছেন, বিজেএমসি ও বিটিএমসিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করা হবে। পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন করা হবে। 

    প্রতিমন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে প্রদত্ত নিদের্শনা বাস্তবায়নের অগ্রগতি পর্যলোচনা সভায় একথা বলেন । 

    প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিজেএমসিকে একটি স্বনির্ভর প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে চাই এবং সে লক্ষ্যে বিজেএমসি’র নিয়ন্ত্রণাধীন মিলগুলো আধুনিকায়ন ও বিএমআরইকরণের কাজ এগিয়ে চলছে।
 
    প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনা বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়ে মির্জা আজম বলেন, এ সভার মূল লক্ষ্য হল প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে সফলতার সাথে দ্রুতগতিতে রূপকল্প ২০২১ এবং রূপকল্প ২০৪১ অর্জন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাটশিল্পের প্রতি খুবই আন্তরিক। বতর্মানে বিজেএমসির ২৬টি মিল চালু আছে,  মৃতপ্রায় পাটকল পুনরুজ্জীবিত করার জন্য পুরাতন মেশিনের পরিবর্তে আধুনিক মেশিন সংযুক্ত করার কাজ দ্রুত সম্পন্ন করা হবে। 

    বস্ত্র ও পাট সচিব ফরিদ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, অতিরিক্ত সচিব ড. মো. নজরুল আনোয়ার ও 
মো. মেসবাহুল ইসলামসহ বিজেএমসি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল হুমায়ূন খালেদ এবং বিটিএমসির সভাপতি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. বায়জিদ সারোয়ার সভায় উপস্থিত ছিলেন।

#

সৈকত/আফরাজ/রফিকুল/রেজাউল/২০১৫/১৮৩২ ঘণ্টা

 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৮

ইতালি ও ফরাসি রাষ্ট্রদূতের সাথে বৈঠকে বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী
বিদেশি দুই নাগরিকের হত্যা রহস্য উন্মোচন সময়ের ব্যাপার মাত্র

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  
    বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রী  রাশেদ খান মেনন বলেছেন, বাংলাদেশ একটি উদার গণতান্ত্রিক দেশ। জঙ্গিবাদ, উগ্রবাদ, মৌলবাদ এবং সাম্প্রদায়িকতার স্থান এখানে নেই। বিদেশি দুই নাগরিকের হত্যা রহস্য উন্মোচন সময়ের ব্যাপার মাত্র। 

    মন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাংলাদেশে ইতালির রাষ্ট্রদূত মারিও পালমা (গধৎরড় চধষসধ) এবং ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত সোফি ওবের (ঝড়ঢ়যরব অঁনবৎঃ ) এর সাথে বৈঠককালে একথা বলেন।

    রাশেদ খান মেনন বলেন, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ জিরো টলারেন্স নীতিতে বিশ্বাসী। তিনি রাষ্ট্রদূতদ্বয়কে বাংলাদেশে বিরাজমান শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতির চিত্র তুলে ধরেন।

    ইতালির রাষ্ট্রদূত বলেন, ইতালির জন্য সিজার তাবেলা হত্যাকা- দুঃখজনক। তবে আমরা বাংলাদেশ সফরে আমাদের নাগরিকদের জন্য কোন এডভাইজারি জারি করিনি। আমরা আমাদের নাগরিকদের বাংলাদেশ  সফরে আসতে বলেছি। আমরা চাই হত্যাকা-ের চলমান তদন্ত সুন্দরভাবে সমাপ্ত হউক। ফরাসি রাষ্ট্রদূত এ প্রসঙ্গে বলেন, বাংলাদেশের তদন্ত শেষ হলেই প্রকৃত বিষয় জানা সম্ভব হবে।

    বৈঠককালে  তারা  পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়াদি ছাড়াও বাংলাদেশের বিমান পরিবহণখাতে বিশেষ করে ফ্রান্স ও ইতালির যৌথ মালিকানাধীন কোম্পানি এটিআর ও বাংলাদেশ বিমানের মধ্যে বাণিজ্যিক অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠার বিষয়ে আলোচনা করেন।

#

শেফায়েত/আফরাজ/মিজান/জসীম/রেজাউল/২০১৫/১৭৩৪ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ৩০৫৭


জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের 
জন্য নির্মাণাধীন ফø্যাট প্রকল্প পরিদর্শনে স্পিকার

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আজ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য ঢাকার শেরেবাংলা নগরে নির্মাণাধীন ৪৪৮টি ফø্যাট প্রকল্প পরিদর্শন করেন। জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন। 
পরিদর্শনকালে স্পিকার প্রকল্পটির বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় করেন। এসময় স্পিকার বলেন, এ প্রকল্প সম্পন্ন হলে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের আবাসন সমস্যার সমাধানে ভূমিকা রাখবে। 
স্পিকার প্রকল্প এলাকায় কমিউনিটি সুবিধা বৃদ্ধিসহ  ডে-কেয়ার সেন্টার তৈরিরও পরামর্শ দেন। তিনি যথাসময়ে ফ্ল্যাটগুলো হস্তান্তরের লক্ষ্যে প্রকল্পের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করারও তাগিদ দেন। 
 শেরেবাংলা নগরে ৫ দশমিক ১০ একর জমির উপর নির্মাণাধীন এ প্রকল্পের সংশোধিত মূল্য ধরা হয়েছে ২১ হাজার ৮৪৭ দশমিক ১৪ লাখ টাকা। ২০১৬ সালের জুন মাসে প্রকল্পটির নির্মাণ কাজ সম্পন্নের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্প এলাকায় ১৫ তলা ভিতবিশিষ্ট ৮টি ভবনে মোট ৪৪৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হবে। 
#
শিবলী/আফরাজ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৫/১৭২০ঘণ্টা 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৬


স্পিকারের সাথে (ঔঊঞজঙ)’র কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ কেই কাওয়ানো এর সাক্ষাৎ

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  

ঔধঢ়ধহ ঊীঃবৎহধষ ঞৎধফব ঙৎমধহরুধঃরড়হ (ঔঊঞজঙ) এর কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ কেই কাওয়ানো (কবর কধধিহড়) আজ বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ও সিপিএ নির্বাহীকমিটির চেয়ারপার্সন 
ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সাথে সংসদ ভবনস্থ তার কার্যালয়ে সাক্ষাত করেন। 
সাক্ষাতকালে তারা দু’দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। স্পিীকার জাপান সফরে তার অভিজ্ঞতা এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী ও জাপানের পার্লামেন্টের উভয় কক্ষের স্পিকারের সাথে সাক্ষাতে তাদের আন্তরিকার কথা তুলে ধরেন। 
    সাক্ষাতকালে কেই কাওয়ানো বাংলাদেশের নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং জাপান এ অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে তাদের দেশেও নারীর ক্ষমতায়নকে আরও এগিয়ে নিতে পারবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, শুধু রাজনৈতিক ক্ষেত্রেই নয় বরং অর্থনৈতিক ক্ষেত্রেও বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়ন প্রশংসার দাবীদার। 
এসময় ঔঊঞজঙ এর এসিস্ট্যান্ট রিপ্রেজেন্টেটিভ মারি তানাকা (গধৎর ঞধহধশধ), পরিচালক লিটন সি. সরকারসহ সংসদ সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 
#

শিবলী/শাহআলম/মিজান/আলী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৫/১৫৩০ ঘণ্টা 


 
তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৫


প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  

জাতীয় সংসদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ১৩তম বৈঠক আজ সংসদভবনে অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান এবং হোসনে আরা বেগম বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন।  
১২তম বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহের বাস্তবায়নের অগ্রগতিপ্রতিবেদন সভায় উপস্থাপনপূর্বক এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের চলমান গুরুত্বপূর্ণ কার্যাবলী ও সিদ্ধান্তসমূহও বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়। 
বৈঠকে সামরিক ভূমি ও সেনানিবাস  অধিদপ্তর (সাভূসে) কে আধুনিকায়নের লক্ষ্যে গৃহীত পদক্ষেপের ওপর বিস্তারিত তথ্য মাল্টিমিডিয়ায় উপস্থাপন করা হয়। কমিটি সামরিক ভূমির দখল ও মালিকানা নিশ্চিত করার পাশাপাশি পরিবর্তিত পরিস্থিতির সংগে সামঞ্জস্য রেখে গৃহীত সিদ্ধান্তসমূহ দ্রুত বাস্তবায়নের সুপারিশ করে। সেনানিবাস এলাকার ভূমির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করার পাশাপাশি উর্ধ্বমূখীভবন নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থাগ্রহণের সুপারিশ করা হয়। এছাড়া বসবাসরত জনগণের ভোগান্তিলাঘবের জন্য সেনানিবাস এলাকার ভূমির মালিকানা ও ফ্ল্যাটহস্তান্তরের অনুমতি প্রদানের ব্যবস্থাগ্রহণের জন্য সুপারিশ করা হয়।    
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কাজী হাবিবুল আউয়াল, তিন বাহিনীর ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
#

নূরুল/শাহআলম/মিজান/আলী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৫/১৫৩০ ঘণ্টা 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৪

বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :  

    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :  
    “জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস ২০১৫ পালন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত।
    টেকসই উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে তথ্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই নির্ভরযোগ্য ও সময়োপযোগী পরিসংখ্যান প্রণয়নে জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার সক্ষমতা নিশ্চিত করা অপরিহার্য। 
    আমাদের সরকার জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার উন্নয়নে অফিসিয়াল পরিসংখ্যানের গুরুত্ব বিবেচনায় পরিসংখ্যান আইন, ২০১৩ প্রণয়ন করেছে। পরিসংখ্যান উন্নয়নে জাতীয় কৌশলপত্র ২০১৩ অনুমোদন করেছে। পরিসংখ্যান ব্যবস্থাকে সার্বিক উন্নয়ন পরিকল্পনার মূলভিত্তি বিবেচনা করে আমরা বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোকে কেন্দ্র হতে তৃণমূলপর্যায় পর্যন্ত শক্তিশালী করার উদ্যোগ নিয়েছি।
    ইতোমধ্যে আমরা নি¤œ-মধ্যমআয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যমআয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার লক্ষ্য নিয়ে আমরা কাজ করছি। এ লক্ষ্য অর্জনে দেশের সকল পরিকল্পনা প্রণয়ন ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে সরকারের পাশাপাশি অন্যান্য তথ্য ব্যবহারকারী সংস্থা ও গবেষকগণের মধ্যে পরিসংখ্যানের ব্যবহার আরও সম্প্রসারিত করতে আমি সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানাই।
    আমি বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস ২০১৫ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।   
             জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
    বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”
#

নুরএলাহি/শাহআলম/মিজান/আলী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৫/১৩০০ ঘণ্টা 

   

তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ৩০৫৩ 

বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী

ঢাকা, ৪ কার্তিক (১৯ অক্টোবর) :   

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এবং বাংলাদেশ পরিসংখ্যান সমিতির যৌথ উদ্যোগে অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশেও দ্বিতীয়বারের মতো ‘বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস ২০১৫’ পালিত হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত।
পরিসংখ্যান উন্নয়ন ও অগ্রগতির পরিমাপক। অর্থনীতিসহ সমাজের সকল কর্মকা-ের গতিপ্রকৃতি নির্ণয় ও উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়নে পরিসংখ্যানের গুরুত্ব অপরিসীম। মূলত সঠিক পরিসংখ্যানই পরিকল্পনা প্রণয়নের পূর্বশর্ত। আজকাল পরিসংখ্যান কেবল অর্থনীতির পরিমাপক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে না, বরং তা প্রচলিত পরিমাপের সীমানা পেরিয়ে মানুষের আয়ুষ্কাল, রুচি, পছন্দ-অপছন্দ, স্বাচ্ছন্দ্য-সন্তুষ্টি তথা জীবনবোধের মতো বিমূর্ত বিষয়গুলোর মাপকাঠি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।   
বাংলাদেশসহ বিশ্বের উন্নয়নশীল ও উন্নত দেশগুলোর প্রকৃত অর্থনৈতিক ও সামাজিক চিত্র তুলে ধরতে পরিসংখ্যানের বিকল্প নেই। একারণে বাংলাদেশ সরকার পরিসংখ্যান কার্যক্রমকে আধুনিকায়ন করে তা জাতীয় উন্নয়নে ব্যবহারে অত্যন্ত আন্তরিক। আমি জেনে খুশি হয়েছি যে, জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যবস্থার উন্নয়নে পরিসংখ্যান আইন ২০১৩ ও এতদসংক্রান্ত জাতীয় কৌশলপত্র প্রণয়ন করা হয়েছে। আমি আশা করি বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস পালনের মধ্য দিয়ে দেশের সকলখাতে পরিসংখ্যানের প্রয়োগ বৃদ্ধি পাবে এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতিও ত্বরান্বিত হবে। 
আমি বিশ্ব পরিসংখ্যান দিবস ২০১৫ উদ্যাপনের সার্বিক সাফল্য কামনা করি।      
  খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”
#

আজাদ/শাহআলম/মিজান/আলী/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৫/১৩২০ ঘণ্টা 

 

Todays handout (7).doc Todays handout (7).doc

Share with :

Facebook Facebook