তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী                                                                                                               নম্বর : ২৩৪৪

 ২০১৮ সালের মধ্যে বিএসটিআই এর লোগোযুক্ত বাটখারা ব্যবহার বাধ্যতামূলক
ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) :
দেশব্যাপী বাধ্যতামূলকভাবে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) এর লোগোযুক্ত বাটখারা ব্যবহার এবং দৈর্ঘ্য পরিমাপের জন্য মিটার পদ্ধতি চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ২০১৮ সালের জুন মাসের মধ্যে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হবে। এরপর থেকে বিএসটিআই এর লোগোবিহীন বাটখারা কিংবা মিটারের পরিবর্তে অন্য কোনো পরিমাপক ব্যবহার করলে, দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। 
বিএসটিআই এর ৩১তম সভায় আজ এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এতে সভাপতিত্ব করেন। 
সভায় প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুষেণ চন্দ্র দাস, বিএসটিআই এর মহাপরিচালক মোঃ সাইফুল হাসিব, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক, শিল্প, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, বস্ত্র ও পাট, তথ্য, কৃষি, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ, বাণিজ্য, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ, স্বরাষ্ট্র, আইসিটি মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, অর্থ বিভাগ, কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বিসিএসআইআর, আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রক, ইপিবি এবং এফবিসিসিআই, এমসিসিআই, ডিসিসিআই, বিসিসিআই, ক্যাব, বুয়েটসহ কাউন্সিলের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
সভায় দেশব্যাপী বিএসটিআই এর মাধ্যমে পণ্য ও সেবার মান নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এ সময় বিএসটিআইকে আধুনিক ও শক্তিশালী করতে চলমান উন্নয়ন কর্মসূচি, জনবল বৃদ্ধি, নতুন প্রকল্প গ্রহণসহ অন্যান্য বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 
সভায় ওজন ও পরিমাপে কারচুপি প্রতিরোধে ডিজিটাল স্কেল চালুর ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়। এ ধরনের পরিমাপক ব্যবহারে ব্যবসায়ী মহলে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এফবিসিসিআই এর সহায়তায় দেশব্যাপী চেম্বার ও অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের নিয়ে উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি আয়োজনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পাশাপাশি এ বিষয়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিএসটিআই সরবরাহকৃত কনটেন্ট অনুযায়ী টেলিভিশন কমার্শিয়াল (টিভিসি) তৈরি করে তা বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ বেসরকারি টিভি চ্যানেলে প্রচারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 
সভায় জানানো হয়, সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো থেকে সরবরাহকৃত গ্যাসের পরিমাপের সঠিকতা যাচাইয়ের জন্য বিএসটিআই ইতোমধ্যে একটি প্রকল্পের আওতায় ৭টি সিএনজি মাস্টার মিটার ক্রয় করেছে। এসব মিটারের মাধ্যমে সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলোতে ফ্লো-কন্ট্রোলিং ডিভাইস টেম্পারিং করে ভোক্তা সাধারণকে ঠকানো হচ্ছে কী-না তা সরেজমিনে পরীক্ষা করা হবে। একই সাথে তিতাস গ্যাস কোম্পানি থেকে সি এনজি ফিলিং স্টেশনগুলো সঠিক পরিমাপে গ্যাস পাচ্ছে কী-না তাও তদারকি করা হবে। 
সভায় জননিরাপত্তা এবং ভোক্তা সাধারণের জন্য মানসম্মত পণ্যের নিশ্চয়তা দিতে ২৯টি নতুন পণ্য বিএসটিআই এর বাধ্যতামূলক সার্টিফিকেশন মার্কস (সিএম) লাইসেন্সের আওতায় আনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়া, বেভারেজের নামে এনার্জি ড্রিংকস্ উৎপাদন ও আমদানির বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়। যেসব প্রতিষ্ঠান এ ধরনের অনৈতিক কাজের সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য দ্রুত উকিল নোটিশ প্রেরণের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। 
সভায় শিল্পমন্ত্রী বিএসটিআইকে জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, এ প্রতিষ্ঠানের গুণগতমানের সাথে জনগণের জীবনের সুরক্ষার বিষয়টি জড়িত। এ বিবেচনায় মান নির্ধারণ ও পরীক্ষণের ক্ষেত্রে বিএসটিআই কর্মকর্তাদের নৈতিক মান আরো উন্নত হতে হবে। তিনি ব্যবসায়ী সমাজের সহায়তায় সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো দ্রুত বাস্তবায়নের পরামর্শ দেন। তিনি তৃণমূল পর্যায়ে ভোক্তা সাধারণের জন্য মানসম্মত পণ্য ও সেবা নিশ্চিত করতে শিল্প কারখানায় আকস্মিক অভিযান পরিচালনার নির্দেশনা দেন। 
#

জলিল/মাহমুদ/আলী/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৭/২০০০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৩৪৩
 
তামাক নিয়ন্ত্রণে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে
                                       --- শ্রম প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) :
শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মোঃ মুজিবুল হক (চুন্নু) বলেছেন, দীর্ঘমেয়াদে তামাক নিয়ন্ত্রণে আইন বাস্তবায়নের পাশাপাশি জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। 
তিনি আজ জাতীয় প্রেসক্লাবের সেমিনারকক্ষে বেসরকারি সংগঠন ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর উদ্যোগে ‘দীর্ঘস্থায়ী তামাক নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জ এবং করণীয়’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। 
শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, তামাক নিয়ন্ত্রণ বা ধূমপান নিয়ন্ত্রণে দেশ উল্লেখযোগ্য উন্নতি সাধন করেছে। শিক্ষিত লোকদের মধ্যে ধূমপানের প্রবণতা কমে গেছে। পরিবহণ, অফিস আদালতে প্রকাশ্যে ধূমপান নেই বললেই চলে। সবাই তামাক ব্যবহারের ক্ষতিকর দিকগুলো সম্পর্কে জানছে। মানুষ আগের চেয়ে এখন বেশি সচেতন। দীর্ঘমেয়াদে অবশ্যই তামাকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে আসবে। তিনি আরো বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে জাতীয় সংসদ নির্বাচন পর্যন্ত সব নির্বাচনেই ধূমপানের ব্যবহার ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পায়। নির্বাচন কমিশন যদি চায় নির্বাচনের সময় প্রার্থীদের ধূমপান নিয়ন্ত্রণের নির্দেশনা প্রদান করতে পারে।   
সেমিনারে জানানো হয়, বিশ্বে তামাক ব্যবহারে সর্বোচ্চ ৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান 
৫ নম্বরে এবং প্রাপ্তবয়স্ক লোকদের মধ্যে ৪৩ দশমিক ৩ শতাংশ তামাক ব্যবহার করে। এ বিশাল জনগোষ্ঠীকে তামাকের ভয়াবহ প্রভাব থেকে মুক্ত রাখতে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।    
সেমিনারে জাতীয় যক্ষা নিরোধ সমিতির সভাপতি এবং বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোটের উপদেষ্টা মোজাফ্ফর হোসেন পল্টুর সভাপতিত্বে এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর মহাপরিচালক খন্দকার  রাকিবুর রহমান, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল এর সমন¦য়ক মুহাম্মদ রুহুল কুদ্দুস, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা) এর চেয়ারম্যান আবু নাসের খান বক্তৃতা করেন।   
সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর কর্মসূচি ব্যবস্থাপক সৈয়দা অনন্যা রহমান।

আকতারুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৭/১৯০০ঘণ্টা

Handout                                                                                                         Number : 2342

   

French Ambassador Aubert pays

farewell call on Shahriar Alam

 

Dhaka, September 12: 

 

            French Ambassador to Bangladesh Sophie Aubert paid a farewell call on the State Minister for Foreign Affairs Md. Shahriar Alam at the Bangladesh Parliament today.

 

            State Minister mentioned that France is not only the development partner, but also a very good friend since the inception of independent Bangladesh in 1971. He mentioned that there are immense potentials in the bilateral trade and investment sector. He thanked the departing French Ambassador for her constructive role in taking the Bangladesh-France relations to a newer height during her tenure in Dhaka.

 

            French Ambassador expressed hope that many projects which have been launched between Bangladesh and France including Bangabandhu Satellite, will continue and emphasized on continued strengthening of bilateral relations.

 

            During the meeting, State Minister expressed concern at the disproportionate actions by the Myanmar military in the recent past on the Rohingya population of Rakhine State. He referred to the atrocities as ethnic cleansing in the Rakhine State, which has been identified as possible crimes against humanity by UN agencies and International Human Rights bodies. He conveyed that Bangladesh wants Myanmar to take back their nationals by creating a safe and dignified situation in Rakhine State. He sought full support of the French government to raise voice, at the international level, against the oppression on Rohingya community by Myanmar military.

 

            Terming the recent situation in Rakhine State as ‘cleansing’, the Ambassador shared that they are fully aware of the issue and highly appreciated the Bangladesh’s role in this regard. 

 

            The French Ambassador thanked the State Minister for Foreign Affairs for extending all-out support and cooperation during her tenure in Bangladesh.

 

#

 

Khaleda/Mahmud/Sanjib/Selim/2017/1820 Hrs

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৩৪১
 
মাদকের উৎস নির্মূলে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে
                                               --- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) : 
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, মাদকের উৎস নির্মূলে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। কেন তরুণ-তরুণীরা মাদকে আকৃষ্ট হচ্ছে, কীভাবে তাদের কাউন্সেলিং করা যায়, তাদের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় কী কী করা যায় এসব বিষয় সমন্বয় করে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে পারলে মাদকের রাহুগ্রাস থেকে মুক্ত হওয়া যেতে পারে। পরিবার থেকে সচেতনতামূলক কার্যক্রম শুরু করতে হবে। 
প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে জেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, দেশ উন্নত হচ্ছে, ঢাকার আশপাশের উপজেলাগুলোয় মাইগ্রেশনও বাড়ছে। এ কারণে এসব এলাকায় অপরাধ প্রবণতাও বাড়তে পারে। প্রতিটি উপজেলার জন্য একটি মাস্টার প্ল্যান করতে পারলে আগামীর সমস্যা ও সম্ভাবনা অনুসারে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা যাবে। ঢাকার আশপাশের উপজেলাগুলোতে যেহেতু কর্মচঞ্চলতা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে, সেহেতু এসব এলাকায় কর্মজীবী মহিলাদের জন্য হোস্টেল করার উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। ইতোমধ্যে কেরানীগঞ্জের জন্য মাস্টার প্ল্যান ও মহিলা হোস্টেল করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি পরিকল্পনার সাথে ভবিষ্যৎ সামাজিক প্রভাব বিশ্লেষণ করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, তরুণদের সাংস্কৃতিক চর্চা ও খেলাধুলায় সম্পৃক্ত করার প্রচেষ্টা চালাতে হবে। কীভাবে উন্মুক্ত স্থান বাড়ানো যায় তার জন্য তিনি ঢাকা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিনকে জনপ্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে পরিকল্পনা গ্রহণ করার আহ্বান জানান। 
উল্লেখ্য, জুলাই ২০১৭ মাসে ঢাকা মহানগর এলাকায় বিভিন্ন আইনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ১৪০ জনকে কারাদ- ও ২২ লাখ ৭৭ হাজার ৯১৫ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ঢাকা জেলার বিভিন্ন উপজেলায় জুলাই ২০১৭ মাসে মোট ৩৪৮টি অপরাধ সংঘটিত হয়েছে। 
ঢাকা জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমানসহ জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। 

আসলাম/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৭/১৮৩৫ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৩৪০

বিশ্ব তাইকোয়ানদো চ্যাম্পিয়ানশিপ- ২০১৭ তে
অংশগ্রহণকারী সান্তনা রায়কে সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রীর আর্থিক অনুদান

ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) :

    উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ং ইয়ং এ ২০তম বিশ্ব তাইকোয়ানদো চ্যাম্পিয়ানশিপ-২০১৭ তে অংশগ্রহণকারী লালমনিরহাটের সান্তনা রায়কে আজ সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ তাঁর অফিস কক্ষে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে নগদ ৬০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান প্রদান করেন।

    অনুদান প্রদানকালে প্রতিমন্ত্রী বলেন, লালমনিরহাটের আদিতমারী একটি প্রত্যন্ত এলাকা। এই রকম একটি দরিদ্র এলাকা থেকে একটি মেয়ে যেভাবে খেলোয়াড়ী জীবন সমৃদ্ধ করেছে এবং বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করছে তা নিঃসন্দেহে  প্রশংসার দাবিদার। আজ এই মেয়েটি সামান্য টাকার অভাবে নানাবিধ সমস্যার সম্মুখীন। প্রতিমন্ত্রী বলেন,  তাঁর মন্ত্রণালয় থেকে সান্তনা রায়ের জন্য ৬০ হাজার টাকা প্রদান করতে পেরে তিনি নিজেকে  কিছুটা  হলেও  তৃপ্ত মনে করছেন।

    খেলায় অংশগ্রহণকারী সান্তনা বলেন, আমি অত্যন্ত দরিদ্র ঘরের  মেয়ে। প্রতিমন্ত্রী মহোদয় এই আর্থিক  সহায়তা  না করলে  আমি হয়তো এই প্রতিযোগিতায়  অংশ নিতে পারতাম না।

    উল্লেখ্য, সান্তনা রায় লালমনিরহাট জেলার হরিদাস দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করে ইতিহাস বিভাগে রংপুর  সরকারি কলেজ থেকে বিএ অনার্স ও রাজশাহী কলেজ থেকে  এম এ সম্পন্ন করেন। স্কুল জীবন থেকেই  সান্তনা রায়  খেলাধুলায় পারদর্শী ছিলেন।  স্কুল জীবনে  স্কুল সহপাঠীদের  সমন্বিত চাঁদা দিয়ে প্রথম জীবনের খেলাধুলা শুরু করেন। পরবর্তীতে সান্তনা রায় ২০১৪ সালে নেপালে অনুষ্ঠিতব্য ৭ম এশিয়ান  তাইকোয়ানদো প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে দেশের জন্য স্বর্ণপদক লাভ করেন।
    
#

মাইদুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/সেলিম/২০১৭/১৮০০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ২৩৩৯
 
 
আওয়ামী লীগ সরকার সকল ধর্মের লোকদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে বিশ্বাসী
ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) : 
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, আওয়ামীলীগ সকল ধর্মের লোকদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানে বিশ্বাসী। তিনি বলেন এক সময় অপপ্রচার ছিল আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশ হিন্দু রাষ্ট্র হবে, মসজিদে উলুধ্বনি উঠবে। কিন্তু এই অপপ্রচার আজ মিথ্যা প্রমানিত হয়েছে। 
ইসলামের সঠিক ব্যাখ্যা ও ভূল বুঝাবুঝি দূর করার জন্য বঙ্গবন্ধুই ইসলামী ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আওয়ামীলীগ সরকারই ৪২ হাজার ইমামকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে। সরকার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ নির্মানের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।  
 প্রতিমন্ত্রী আজ গাজীপুরের কালিগঞ্জের তুমুলিয়া বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে কালীগঞ্জের সকল মসজিদের ইমাম ও মুসলিম ধর্মীয় নেতাদের এক বিশাল সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।
কালীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মুশফিকুর রহমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন  কালীগঞ্জ উপজেলা ইমাম পরিষদের সভাপতি মুফতি আবুল বাসার, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা নূরুল আমিন ও বিশিষ্ট  ধর্মীয় নেতা মাওলানা মো. আব্দুল হানিফ প্রমুখ।
মেহের আফরোজ চুমকি মায়ানমারে রোহিঙ্গা নিধনের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন এবং বিশ্ববাসীকে এই নিধনের প্রতিবাদে জোরালো ভুমিকা রাখার আহ্বান জানান। তিনি নোবেল বিজয়ী ড. ইউনুস ও অংসান সুচিকে চলমান রোহিঙ্গা ইস্যুতে আরো মানবিক ও সরব হওয়ার আহ্বান জানান।
 
#
খায়ের/অনসূয়া/শহিদ/শামীম/২০১৭/১৬৪১ ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ২৩৩৮
 
‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ সফলভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে বিদেশি কূটনীতিকদের সহযোগিতার আহ্বান
 
ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) : 
ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিতব্য ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ এ সংশ্লিষ্ট দেশের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রীবর্গ এবং প্রতিষ্ঠিত আইটি প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশে কর্মরত শীর্ষস্থানীয় বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে সহযোগিতার আহ্বান জানালেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক। ১১ সেপ্টেম্বর প্রতিমন্ত্রীদ্বয় রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় আয়োজিত ‘এম্বাসেডরস্ নাইট’-এ এই আহ্বান জানান। 
আইসিটি ডিভিশন আয়োজিত অনুষ্ঠানে ১৭ দেশের রাষ্ট্রদূত, হাই কমিশনার ও চার্জ দ্যা অফেয়ার্সসহ শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিকগণ অংশ নেন। কূটনীতিকগণ এ সময় তাদের আন্তরিক প্রয়াস ও সর্বাতœক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে নতুন নতুন সমস্যা মোকাবিলা ও বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল পরিবর্তনের হুমকি মোকাবিলায় সমন্বিত প্রচেষ্টার গুরত্ব এবং ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ আয়োজনের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে সর্বোত্তম উপায়ে বিদ্যমান সমস্যাসমূহ মোকাবিলায় পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কার্যকর উপায় খুঁজে বের করতে মিনিস্টারিয়েল কনফারেন্স এর আয়োজন করা হয়।
শীর্ষ কূটনীতিকদেরকে ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে সরকারের অর্জন তুলে ধরে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুুক্তি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের বিবেচিত মূল ভিত্তিসমূহের অগ্রগতি ও সক্ষমতা ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ এর মাধ্যমে বরাবরের মতোই তুলে ধরা হবে।
পরে উন্মুক্ত আলোচনায় শীর্ষ কূটনীতিকগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসনিার নেতৃত্বে স্বল্প সময়ে বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যাপক অগ্রগতির ভূয়সী প্রশংসা করেন। বেশ কয়েকজন কূটনীতিক বাংলাদেশি তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের অব্যাহত উন্নতির প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো আজ দেশের গ-ি ছাড়িয়ে বিদেশেও ভালো করছে। সরকারের অগ্রাধিকার প্রাপ্ত এ খাতে কূটনীতিকগণ নিজ নিজ দেশের বিনিয়োগেরও আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 
অনুষ্ঠানে কূটনীতিকগণ আগামী ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ এ তাদের নিজ নিজ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রীবর্গের এবং শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব ও প্রতিষ্ঠানের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে সর্বাতœক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি-ভিত্তিক দেশীয় ব্যবসায়িক সংগঠনগুলোর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, আগামী ৬ ডিসেম্বর থেকে ৪ দিন ব্যাপী ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭’ অনুষ্ঠিত হবে। 
 
#
নাছের/অনসূয়া/রেজ্জাকুল/শামীম/২০১৭/১৬০৪ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৩৩৭
 
নবম-দশম শ্রেণির পরিমার্জিত বই শিক্ষামন্ত্রীর নিকট হস্তান্তর 
 
 
ঢাকা, ২৮ ভাদ্র (১২ সেপ্টেম্বর) : 
নবম-দশম শ্রেণির পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত, উচ্চতর গণিত, জীববিজ্ঞান ও সাধারণ বিজ্ঞান বিষয়ের ৬টি পাঠ্যবইয়ের পরিমার্জিত কপি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে। পাঠ্যপুস্তক পরিমার্জন টিমের সদস্যগণ আজ সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কাছে ৬টি বইয়ের কপি হস্তান্তর করেন।
এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, নবম ও দশম শ্রেণির পরিমার্জিত পাঠ্যবইগুলো শিক্ষার্থীদের কাছে অনেক আকর্ষনীয় ও সহজপাঠ্য হবে। বইয়ের মান উন্নয়নের ক্ষেত্রে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। তিনি বলেন, নতুন পরিমার্জিত বইগুলো আগামী বছর শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেব। পর্যায়ক্রমে ষষ্ঠ শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত অন্যান্য বইয়ের মানও বাড়ানো হবে। 
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বইগুলোর মান উন্নত করা হয়েছে। এর ফলে পাঠ্যপুস্তকের মানের দৃশ্যমান অগ্রগতি হল। এগুলোর উপস্থাপনা সুন্দর ও বইগুলো সুখপাঠ্য হবে। শিক্ষার্থীরা পড়ে নিজেরাই বুঝতে পারবে। নতুন পরিমার্জিত বইগুলোকে চমৎকার উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পাঠ্যবইয়ের মান বৃদ্ধির প্রভাব অন্যান্য ক্ষেত্রের  মানবৃদ্ধিতেও পড়বে। শিক্ষকের মানবৃদ্ধি, ভৌত অবকাঠামো সুন্দর হওয়া প্রয়োজন। শিক্ষকদের নিষ্ঠা ও আন্তরিকতা আরো জোরদার করতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মান কমছে না, বাড়ছে। তবে আমরা যে মানে পৌঁছতে চাই, সেটা হয়ত হচ্ছে না। শিক্ষার মানবৃদ্ধি করা সারা জগতের চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, প্রতিবছর শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়ার ফলে বিরাট উৎসাহ সৃষ্টি করছে। ছেলেমেয়েদের স্কুলমুখি করছে। এখন সকল শিশুকে স্কুলে নিয়ে আসা সম্ভব হয়েছে। যদিও ঝরে পড়া এখনও চ্যালেঞ্জ।
অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, অতিরিক্ত সচিব 
ও পাঠ্যপুস্তক পরিমার্জন কমিটির সমন্বয়ক চৌধুরী মুফাদ আহমদ, সদস্য ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ এবং জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর নারায়ন চন্দ্র সাহা বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রীর হাতে বইগুলোর সিডিও তুলে দেয়া হয়।
#
আফরাজুর/অনসূয়া/শহিদ/শামীম/২০১৭/১৫৩৪ ঘণ্টা 
Todays handout (4).docx Todays handout (4).docx

Share with :
Facebook Facebook