তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৪ জানুয়ারি ২০১৮

তথ্যবিবরণী 14/01/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ১৫৬ 

হিজড়া জনগোষ্ঠীকে স্বীকৃতি দিয়েছে সরকার
                       --- সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী

ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, হিজড়া জনগোষ্ঠীকে বর্তমান সরকার তৃতীয় লিঙ্গের স্বীকৃতি দিয়েছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন। হিজড়া জনগোষ্ঠীর শারীরিক ত্রুুটি, ভিন্নতা ও বৈচিত্র্যের জন্য তারা দায়ী নয়; এটি সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত। এটির ওপর তাদের কোনো হাত নেই। কিন্তু বাস্তব ক্ষেত্রে আমরা এ সত্য ভুলে যাই। আমাদের এ বৈচিত্র্যকে স্বাভাবিক হিসেবে গ্রহণ করতে হবে। আমাদের মানবিক হতে হবে, তাদেরকে কাছে টানতে হবে।
মন্ত্রী আজ রাজধানীর বাংলাদেশ মহিলা সমিতি মিলনায়তনে বাংলাদেশের হিজড়া ও লৈঙ্গিক বৈচিত্র্যময় জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য, জীবনমান উন্নয়ন ও মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বন্ধু‘র সাংস্কৃতিক সংগঠন সত্তার পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউএসএইড (টঝঅওউ) বাংলাদেশের ডেমোক্রেসি ও গভর্নেন্স বিষয়ক ডেপুটি অফিস ডিরেক্টর স্লাভিকা রাডোসেভিক (ঝষধারপধ জধফড়ংবারপ)।
প্রধান অতিথি বলেন, আইন হওয়াটাই যথেষ্ট নয়, এর প্রয়োগ জরুরি। আমাদের দেশে অনেক আইন আছে যেগুলোকে আমরা ঠিকমত মানি না। আইনের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। আইন মেনে চলার মানসিকতা গড়তে হবে। অন্যথায় নতুন নতুন আইন তৈরি সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কোনো সুফল বয়ে আনবে না। হিজড়া সম্প্রদায়কে নিজেদের অধিকার ও আত্মসম্মানের প্রতি আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, হিজড়াদের অধিকার নিয়ে কথা বলার দায়িত্ব শুধু তাদের নয়; এটি আমাদের সকলের নৈতিক দায়িত্ব। তাদের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ সকল মৌলিক অধিকার নিশ্চিতকরণে রাষ্ট্রের পাশাপাশি আমাদের সকলের দায়িত্ব রয়েছে। তিনি আরো বলেন, হিজড়া সম্প্রদায়কে নিয়ে কাজ করা কোনো সংগঠন যদি ভবিষ্যতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের জন্য আর্থিক সহযোগিতা চায়, সেক্ষেত্রে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান করবে। তাছাড়া শিল্পকলা একাডেমিতে জাতীয় পর্যায়ের অনুষ্ঠানে হিজড়াদের প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা হবে।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির চেয়ারপারসন আনিসুল ইসলাম হিরু।
#

ফয়সল/সেলিম/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/২০১০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ১৫৫
 
মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :
কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের জন্য মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে বেসরকারি উৎস থেকে প্রাপ্ত ত্রাণ সরকারি উদ্যোগে বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। 
      উখিয়ায় স্থাপিত নিয়ন্ত্রণকক্ষে আজ ১৯ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ৩৪ ট্রাকের মাধ্যমে ৮২ মেট্রিক টন ত্রাণ জমা দিয়েছে। প্রাপ্ত এসব ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ২ হাজার ৫ শত ৪৭ প্যাকেট শুকনো খাবার, ৭ হাজার ৪ শত প্যাকেট শিশু খাদ্য, ৪ হাজার ৮ শত প্যাকেট রান্না করা খাবার, ৩২ হাজার ১ শত ৮ পিস গৃহস্থালিসামগ্রী ও ১০ হাজার ৩ শত ১০ পিস পোশাক। এসব ত্রাণ আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।  
কক্সবাজার জেলা ত্রাণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, আজ পর্যন্ত কক্সবাজারের ৪টি খাদ্য গুদামে প্রাপ্তি ও প্রদানের পর ২ হাজার ৮ শত ১৬ মেট্রিক টন চাল, ৬৪ মেট্রিক টন ডাল, ৮৭ হাজার ৯ শত ৬৯ লিটার তেল, ৪১ মেট্রিক টন লবণ, ৫০ মেট্রিক টন চিনি, ২ হাজার ২ শত ৮ কেজি আটা, ৫২ হাজার ৪ শত ৭০ কেজি গুঁড়োদুধ, ৭ হাজার ২ শত পিস ও ৪৯ বান্ডেল কম্বল, ৫১১ টি তাঁবু ও ত্রিপল মজুত রয়েছে।   
জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা কর্তৃক যৌথভাবে পরিচালিত ‘অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিকদের মানবিক সহায়তা’ নামক সোনালী ব্যাংক, কক্সবাজার শাখার চলতি হিসাব নং ৩৩০২৪৬২৫-এ আজ পর্যন্ত ৪ কোটি ৯৮ লাখ ১১ হাজার ৩ শত ৯ টাকা জমা রয়েছে।
#
 
সাইফুল/সেলিম/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/১৯০০ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ১৫৪
 
মিয়ানমার নাগরিকদের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন চলছে
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) ঃ 
কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬টি ক্যাম্পের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কাজ এগিয়ে চলছে। পাসপোর্ট অধিদপ্তর নিবন্ধন কাজ বাস্তবায়ন করছে। 
 
আজ কুতুপালং -১ ক্যা¤েপ ৭ শত ৯৭ জন পুরুষ, ৬ শত ৯৩ জন নারী মিলে ১ হাজার ৪ শত ৯০ জন, কুতুপালং-২ ক্যাম্পে ১ হাজার ৪০ জন পুরুষ, ১ হাজার ২ শত ৫০ জন নারী মিলে ২ হাজার ২ শত ৯০ জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ১ শত ৫৯ জন পুরুষ, ১ শত ৭৬ জন নারী মিলে ৩ শত ৩৫ জন, থাইংখালী-১ ক্যাম্পে ২ শত ২ জন পুরুষ, ২ শত জন নারী মিলে ৪ শত ২ জন, থাইংখালী-২ ক্যাম্পে ২ শত ৬৫ জন পুরুষ, ২ শত ৫৩ জন নারী মিলে ৫ শত ১৮ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ৯ শত ৮৭ জন পুরুষ, ৯ শত ৭৭ জন নারী মিলে ১ হাজার ৯ শত ৬৪ জন এবং পুরোদিনে ৬ টি কেন্দ্রে মোট ৬ হাজার ৯ শত ৯৯ জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে। 
 
আজ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোট ৯ লাখ ৯২ হাজার ৬ শত ৮৪ জনের নিবন্ধন করা হয়েছে। 
 
সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক আজ পর্যন্ত  ৩৬ হাজার ৩ শত ৭৩ জন এতিম শিশু শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ হাজার ৩ শত ৯৫ জন ছেলে এবং ১৮ হাজার ৯ শত ৭৮ জন মেয়ে। বাবা-মা কেউ নেই এমন এতিম শিশুর সংখ্যা ৭ হাজার ৭ শত ৭১ জন। 
 
উল্লেখ্য, কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট মোতাবেক ১৩ জানুয়য়ারি  পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিক সংখ্যা ৬ লাখ ৭৩ হাজার ১ শত ৫০ জন। অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে। ২৫ আগস্ট ২০১৭ এর পূর্বে আগত মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৪ হাজার ৬০ জন।
 
#   
সাইফুল/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮৫০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ১৫৩
 
নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা চালাচ্ছে   
                                                 -- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
 
আবুধাবি, ১৪ জানুয়ারি :  
 
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় বাংলাদেশ সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছে। বাংলাদেশের উদ্যোগের সাথে বাইরের স্টেকহোল্ডারস, উন্নয়ন সহযোগী, অর্থায়ন প্রতিষ্ঠান, প্রযুক্তি প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান সকলেরই সহযোগিতা প্রয়োজন। সম্মিলিত ও সমন্বিত প্রচেষ্টায় বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের অস্থায়ী বা স্থায়ী নেতিবাচক প্রভাব দ্রুত মোকাবিলা সম্ভব।    
প্রতিমন্ত্রী আজ সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত ওহঃবৎহধঃরড়হধষ জবহবধিনষব ঊহবৎমু (ওজঊঘঅ)’র ৮ম “ঝঃৎধঃবমরপ চরবহধৎু : গরহরংঃবৎরধষ উরংপঁংংরড়হ” সেশনে অফাধহপরহম জবহবধিনষব ঊহবৎমু ঈড়সঢ়ড়হবহঃং ড়ভ ঘধঃরড়হধষষু উবঃবৎসরহবফ ঈড়হঃরনঁঃরড়হং (ঘউঈ): ইধহমষধফবংয চবৎংঢ়বপঃরাব” শীর্ষক বিষয়ে বক্তব্যকালে এসব কথা বলেন।  
আফগানিস্তানের জ্বালানি ও পানি বিষয়ক মন্ত্রী আলী আহমদ ওসমানির সঞ্চালনায় ইথিওপিয়ার পানি, সেচ ও বিদ্যুৎ মন্ত্রী ড. সিলেশী বেকেল আওলাচিও (উৎ. ঝবষবংযর ইবশবষব অঁিষধপযব)ি, গায়ানার পাবলিক অবকাঠামো বিষয় মন্ত্রী ডেভিড পিটারসন (উধারফ চধঃঃবৎংড়হ),   সংযুক্ত আরব আমিরাতের জলবায়ু পরিবর্তন এবং পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রী ড. থানি আহমেদ আল জাইয়েদী (উৎ. ঞযধহর অযসবফ অষ তবুড়ঁফর) অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। 
#
আসলাম/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮৪২ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ১৫২

 
এভিয়েশন ও পর্যটনের বিকাশে আটাবের ভূমিকা প্রশংসনীয়
                                                   -- বিমানমন্ত্রী
 
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :  
 
বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী একেএম শাহজাহান কামাল বলেছেন, এভিয়েশন ও পর্যটন শিল্পের বিকাশে আটাবের (এসোসিয়েশন অভ্ ট্রাভেল এজেন্টস অভ্ বাংলাদেশ) ভূমিকা প্রশংসনীয়। ১৯৭৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া এ সংগঠনটি  সে দিনের নবীন রাষ্ট্র বাংলাদেশকে চিনতে যেমন ভূমিকা রেখেছে তেমনি  বিনিয়োগ, বাণিজ্য ও পর্যটন শিল্পে সম্ভাবনার বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবার ক্ষেত্রেও অবদান রেখে চলেছে। আজ সচিবালয়ে আটাব নেতৃবৃন্দ মন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করতে এলে তিনি এ কথা বলেন। 
 
মন্ত্রী বলেন, আবেদনকারীরা যাতে সহজে, স্বাচ্ছন্দ্যে লাইসেন্স পায় সেজন্য মন্ত্রণালয় অনলাইনে ট্রাভেল এজেন্সি লাইসেন্স কার্যক্রম চালু করেছে। ট্রাভেল লাইসেন্স প্রাপ্তিতে আরও স্বচ্ছতা আনার জন্য একটি মনিটরিং টিম গঠন করা হবে এবং এজেন্সির মালিকানা পরিবর্তন আইন সংশোধনে পদক্ষেপ নেয়া হবে। 
 
এ সময় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব মোঃ ইমরান, আটাব সভাপতি মঞ্জুর মোর্শেদ মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক আবদুস সালাম আরিফসহ অন্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 
 
#
 
তুহিন/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮৩০ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ১৫১
 
বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :  
দশম জাতীয় সংসদের বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ২৪তম বৈঠক আজ কমিটির সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কমিটির সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, এনামুল হক, ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল, মোঃ ছানোয়ার হোসেন এবং লায়লা আরজুমান বানু অংশগ্রহণ করেন।
বিগত ২৩তম সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, টিসিবি, ট্যারিফ কমিশনসহ অন্যান্য দপ্তরের কার্যক্রম সম্পর্কে আলোচনা  করা হয়। 
বৈঠকে জানানো হয়, সারাদেশে টিসিবির ২ হাজার ৮৬১ জন ডিলারের মধ্যে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যগণের সুপারিশে ১ হাজার ৩৪৫ জন ডিলার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। উক্ত ১ হাজার ৩৪৫ জন ডিলারের মধ্যে ৬৯১ জন ডিলারকে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সংসদ সদস্যগণের সুপারিশের প্রেক্ষিতে সরাসরি নিয়োগ করা হয় এবং অবশিষ্ট ৬৫৪ জন ডিলারকে নিয়োগের ক্ষেত্রে ডিলারদের তথ্যাদি সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে যাচাই করে নিয়োগ করা হয়। অবশিষ্ট ১ হাজার ৪৭১ জন ডিলারকে তাদের তথ্যাদি সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের মাধ্যমে যাচাই করে ডিলারশিপ প্রদান করা হয়েছে।
ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা (ডিআইটিএফ) ২০১৮ তে বিদেশি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৭টি দেশ থেকে মোট ৪৩টি প্রতিষ্ঠান মেলায় অংশগ্রহণ করেছে বলে জানানো হয়। বাণিজ্য মেলায় প্রবেশের জন্য সংসদ সদস্যগণকে যথাসংখ্যক কম্লিমেন্টারি কার্ড প্রদান করা হয়েছে। বাণিজ্য মেলার সার্বিক ব্যবস্থাপনা সরেজমিনে পরিদর্শনের জন্য আগামী শুক্রবার সংসদীয় কমিটির সদস্যগণ মেলা প্রাঙ্গণ পরিদর্শন করবেন বলে জানানো হয়।
বিভিন্ন পণ্যে ভেজাল, ওজনে কম দেওয়াসহ ভোক্তাদের নানাবিধ প্রতারণা মোকাবিলা করার জন্য ভোক্তা অধিকার আইন অনুযায়ী নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করার সুপারিশ করা হয়। দেশের বাইরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মেলায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট মান বজায় রাখার এবং সংসদীয় কমিটির সদস্যদের অন্তর্ভুক্ত করে মেলায় অংশগহণের সুপারিশ করা হয়।
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
#
মিজানুর/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮১২ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ১৫০
 
সিপিডি দেশের উন্নয়ন খুঁজে পায় না
                        -- বাণিজ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, সিপিডি দেশবাসীকে হতবাক করেছে। যদি সিপিডির প্রকাশিত গবেষণা রিপোর্ট সঠিক হয়-তা হবে দুঃজনক। সিপিডি দেশের উন্নয়ন খুঁজে পায় না। উন্নয়নের সকল শর্ত পূরণ করে বাংলাদেশ যখন  এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হতে যাচ্ছে আগামী মার্চ মাসে, তখন সিপিডি দেশের উন্নয়নের সমালোচনা করছে। বিশ্ব ব্যাংকসহ দেশি-বিদেশি বিশ্বের বিখ্যাত অর্থনীতিবিদ, অর্থনৈতিক গবেষক ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের উন্নযনের প্রশংসা করছে। ২০০৬ সালে দেশের দরিদ্র মানুষ ছিল ৪৩ ভাগ, আজ তা কমে ২২.৪ ভাগে নেমে এসেছে, দেশের হতদরিদ্র মানুষের সংখ্যা ১৭.৬ ভাগ থেকে ১১.৯ ভাগে নেমে এসেছে। জাতিসংঘ ঘোষিত এসডিজি’র সফল বাস্তবায়নের মধ্যদিয়ে ২০৩০ সালে দেশের হতদরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৩ ভাগের নীচে নেমে আসবে। সরকার দেশের দারিদ্র্যতা দূর করতে দীর্ঘমেয়াদি নিরাপত্তা ব্যবস্থা চালু করেছে। ২০৩০ সালে বাংলাদেশ হবে বিশে^র মধ্যে ২৮তম এবং ২০৫০ সালে ২৩তম অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী দেশ। এমডিজি অর্জনে বাংলাদেশ এলডিসি দেশগুলোর মধ্যে সফল হয়েছে। বর্তমানে দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে ৩২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি, রেমিট্যান্স আসছে প্রায় ৩৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সিপিডি সেখানে বাংলাদেশের উন্নয়ন খুঁজে পাচ্ছে না। 
বাণিজ্যমন্ত্রী আজ ঢাকায় নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত ঈযধৎষড়ঃঃধ ঝপযষুঃবৎ এর সাথে মতবিনিময় করে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, এ রিপোর্ট প্রকাশের মাধ্যমে সিপিডি বিরোধী দলের হাতে অস্ত্র তুলে দিল। যারা এক সময় বাংলাদেশকে বলতো-তলাবিহীন ঝুঁড়ি এবং বিশ্বের দরিদ্র দেশের রোলমডেল। আজ তারাই বলছে বাংলাদেশের উন্নয়ন বিস্ময়কর। সেখানে সিপিডি বাংলাদেশের উন্নয়ন খুঁজে পান না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার দেশের তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে ১৬ হাজার ৪৩ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সফলতা দেখিয়েছে। দেশের ৮৩ ভাগ মানুষ এখন বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে। দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় এখন ১৬১০ মার্কিন ডলার, দেশের মানুষের শিক্ষার হার ৭১ ভাগ, মানুষের গড় আয়ু ৭০ দশমিক ৩ বছর, জিডিপির প্রবৃদ্ধির হার ৬ ভাগ থেকে বেড়ে ৭ দশমিক ২ ভাগ হয়েছে, দেশেই এখন প্রয়োজনের ৯৮ ভাগ ঔষধ উৎপাদিত হচ্ছে বিশে^র ১২২টি দেশে বাংলাদেশের তৈরি ঔষধ রপ্তানি হচ্ছে, দেশের সর্ববৃহৎ পদ্মাসেতু নিজ অর্থে নির্মাণ করা হচ্ছে অথচ সিপিডি দেশের উন্নয়ন খুঁজে পায় না। বিএনপির বক্তব্যের সাথে সিপিডির বক্তব্যের কোনো পার্থক্য নেই। 
বাণিজ্যসচিব শুভাশীষ বসু, অতিরিক্ত সচিব মুন্সী শফিউল হক, অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) তপন কান্তি ঘোষ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
 
#
 
বকসী/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮০৮ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ১৪৯
 
তৈরি পোশাক শিল্পের জন্য নি¤œতম মজুরি বোর্ড গঠিত
 
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :  
তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের জন্য নি¤œতম মজুরি বোর্ড গঠন করেছে সরকার। আজ বাংলাদেশ সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মোঃ মুজিবুল হক নি¤œতম মজুরি বোর্ডের নতুন সদস্যদের নাম ঘোষণা করেন।
শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারের স্থায়ী নি¤œতম মজুরি বোর্ড রয়েছে। তবে যখন যেই খাতের মজুরি বোর্ড গঠন করা হয় সেই খাতের দুইজন প্রতিনিধি যুক্ত করা হয়। মালিকপক্ষ থেকে একজন এবং শ্রমিকপক্ষ থেকে একজন। প্রতিমন্ত্রী পোশাক খাতের মজুরি বোর্ডের জন্য মালিকদের পক্ষ থেকে বিজিএমইএ এর সভাপতি মোঃ সিদ্দিকুর রহমান এবং শ্রমিকদের প্রতিনিধি হিসেবে জাতীয় শ্রমিক লীগের নারী বিষয়ক সম্পাদিকা বেগম শামসুন্নাহার ভূইয়ার নাম ঘোষণা করেন। চার সদস্যবিশিষ্ট স্থায়ী নি¤œতম মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান হলেন সিনিয়র জেলা জজ সৈয়দ আমিনুল ইসলাম। আর তিনজন সদস্য হলেন- মালিকপক্ষের প্রতিনিধি বাংলাদেশ এমপ্লয়ার্স ফেডারেশনের শ্রম উপদেষ্টা কাজী সাইফুদ্দীন আহমদ,  শ্রমিকপক্ষের প্রতিনিধি ফজলুল হক মন্টু, তিনি বাংলাদেশ শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি। নিরপেক্ষ প্রতিনিধি হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন। 
এর আগে ২০১৩ সালে সর্বশেষ মজুরি বোর্ড ঘোষণা করা হয়েছিল। এই বোর্ডকে আগামী ছয় মাসের মধ্যে শ্রমিকদের বেতন নির্ধারণ করে সুপারিশ দিতে বলা হয়েছে। সুপারিশের আলোকে সরকার আগামী ডিসেম্বরের আগেই নি¤œতম মজুরি ঘোষণা করতে পারবে বলে  প্রতিমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 
সংবাদ সম্মেলনে শ্রম মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আফরোজা খান, বিজিএমইএ এর সভাপতি মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই এর সাবেক সভাপতি ও হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ কে আজাদ, বিজিএমইএ এর সহসভাপতি মোঃ নাসির উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। 
 
#
 
আকতার/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৭৩৫ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১৪৮
 
মাদ্রাসা শিক্ষকদের দাবি শিক্ষামন্ত্রী উচ্চপর্যায়ে তুলে ধরবেন
 
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :  
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অফিসকক্ষে আন্দোলনরত বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকগণের দাবির বিষয়ে এক সভায় মিলিত হন। সভায় প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী উপস্থিত ছিলেন। এ সময় কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা সচিব মোঃ আলমগীর, অতিরিক্ত সচিব এ কে এম জাকির হোসেন ভূঁইয়া, অশোক কুমার বিশ্বাস ও রওনক মাহমুদ, মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ বিল্লাল হোসেনসহ সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সভায় আন্দোলনরত বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষকগণের দাবির বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। চলমান সংকট নিরসনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সক্রিয় প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শীঘ্রই এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে অবহিত করা হবে। 
সভাশেষে শিক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরী ও মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমানকে আমন্ত্রণ জানিয়ে সভার সিদ্ধান্ত অবহিত করে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আন্দোলনরত আমরণ অনশনকারী শিক্ষকগণকে নিয়ে ঘরে ফিরে যাবার অনুরোধ জানান। তিনি এই তীব্র শীতের মধ্যে আর কষ্ট না করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনাদের দাবি ও সমস্যা যথাযথভাবে আমরা প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরব। আপনারা ঘরে ফিরে যান। 
প্রতিনিধিদ্বয় মন্ত্রীর প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে বলেন, সারা দেশের শিক্ষক প্রতিনিধিগণ যেহেতু অনশনে আছে, সেখান থেকে ২০ জনের একটি প্রতিনিধিদলের সামনে এই প্রস্তাব তুলে ধরলে ভালো হয়। সেই অনুযায়ী বিকাল ৩টায় আবার ২০ জনকে তারা মন্ত্রীর অফিসকক্ষে নিয়ে আসেন। মন্ত্রী প্রতিনিধিগণের সামনে আবার আন্দোলনরত সকলকে ঘরে ফিরে যাবার অনুরোধ জানান। তাদের দাবির বিষয়ে শীঘ্রই প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীর কাছে যথাযথভাবে তুলে ধরার আশ্বাস দেন।
#
 
আফরাজুর/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৭২৩ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১৪৭  
 
নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৫০তম বৈঠক
 
 
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :  
 
নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৫০তম বৈঠক কমিটির সভাপতি মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, বীর-উত্তম এর সভাপতিত্বে আজ সংসদভবনে অনুষ্ঠিত হয়।
পায়রাবন্দর কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্পোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি), বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ এবং নৌপরিবহন অধিদপ্তরের কার্যক্রম সম্পর্কে বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
বৈঠকে উল্লেখ করা হয়, আন্তর্জাতিক কনভেনশনের চাহিদা অনুযায়ী বিদেশি জাহাজে বাংলাদেশি নাবিকদের চাকুরির সুযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিভিন্ন দেশের সাথে বাংলাদেশি সনদের গ্রহণযোগ্যতা সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন বাংলাদেশের সনদের স্বীকৃতি দিয়েছে এবং ইটালি, জার্মানি ইউকেসহ ২৯টি দেশের সাথে বাংলাদেশের সনদের পারস্পরিক সমঝোতা স্বাক্ষর হয়েছে।
বৈঠকে আরো উল্লেখ করা হয় যে, দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি এবং ট্রলারধরনের নৌজানের দুর্ঘটনা হ্রাসের জন্য রিভার্সিবল গিয়ার সংযোজনের উদ্যোগ নেয়া হয়। নৌযানের নিরাপত্তা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নৌযান মালিকদের উদ্বুদ্ধ করে রিভার্সিবল গিয়ার সংযোজনের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া, কমিটি বাংলাদেশে একটি নেভাল মিউজিয়াম স্থাপনের সুপারিশ করেছে। 
কমিটির সদস্য তালুকদার আব্দুল খালেক, মো. নূরুল ইসলাম সুজন, মো. হাবিবর রহমান, এম আব্দুল লতিফ, রণজিৎ কুমার রায়, এডভোকেট মমতাজ বেগম এবং নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবসহ মন্ত্রণালয় ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। 
#
 
সাব্বির/রিফাত/শহিদ/জসীম/রফিকুল/আসমা/২০১৮/১৬১৫ ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ১৪৬
 
এনার্জি চার্টারের সদস্য হওয়ার আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন     
                                              -বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
দুবাই,  (১৪ জানুয়ারি) :
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, এনার্জি চার্টারের সদস্য হওয়ার আনুষঙ্গিক কাজ সম্পন্ন। শীঘ্রই বাংলাদেশ সদস্য পদ অর্জন করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, জ্বালানিখাতের উন্নয়নে বাংলাদেশে বিনিয়োগের অপরিসীম সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ বিনিয়োগ নিশ্চিত লাভজনক এবং এর সুফল দ্রুত পাওয়া যাবে।       
প্রতিমন্ত্রীর সাথে ১৩ জানুয়ারি সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত ওহঃবৎহধঃরড়হধষ জবহবধিনষব ঊহবৎমু (ওজঊঘঅ) ৮ম সম্মেলনের উদ্বোধনী দিনে এনার্জি চার্টারের সেক্রেটারি জেনারেল স্বাক্ষাৎ করতে এলে তিনি এসব কথা বলেন।
এনার্জি চার্টারের সদস্য হলে বিনিয়োগ, ব্যাবসা এবং এর রোডম্যাপ, জ্বালানি সাশ্রয়, জ্বালানি সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তি, অভিজ্ঞতা বিনিময়, গ্রিন ফান্ড প্রাপ্তি ইত্যাদি সহযোগিতা পাওয়া যাবে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মতামত এবং হালনাগাদ তথ্য সংবলিত প্রতিবেদন সন্নিবেশ করার জন্য এনার্জি চার্টারে প্রেরণ করা হয়েছে। এনার্জি চার্টারের সাথে আলোচনাক্রমে চূড়ান্ত খসড়া তৈরি করে ভেটিং এর জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হবে। ভেটিং পর্ব শেষ হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে এনার্জি চার্টারে যোগদান করা হবে। 
আলোচনাকালে অন্যান্যের মাঝে এনার্জি চার্টার সেক্রেটারি জেনারেল উৎ. টৎনধহ জঁংহধশ, এনার্জি চার্টারের নলেজ সেন্টার কো-অর্ডিনেটর উৎ. গধৎধঃ ঞবৎঃবৎড়া এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গঁযধসসধফ ওসৎধহ উপস্থিত ছিলেন। 
#
আসলাম/রিফাত/রফিকুল/শামীম/২০১৮/১৬০০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ১৪৫
 
শিক্ষামন্ত্রীর সাথে এডিবি’র কান্ট্রি ডিরেক্টরের সাক্ষাৎ
 
ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) :
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের সাথে আজ সচিবালয়ে তার অফিসকক্ষে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর গধহসড়যধহ চধৎশধংয সাক্ষাৎ করেন। বাংলাদেশে এডিবি’র আবাসিক মিশনের সিনিয়র সোশাল সেক্টর অফিসার এস এম এবাদুর রহমান এবং সিনিয়র এক্সটারনাল রিলেশনস অফিসার এড়নরহফধ ইধৎ এসময় তার সাথে ছিলেন।
 
সাক্ষাৎকালে তারা বাংলাদেশে এডিবি’র চলমান প্রকল্পগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। এডিবি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর বাংলাদেশে শিক্ষাক্ষেত্রে অগ্রগতির প্রশংসা করেন এবং বাংলাদেশে এডিবি’র কার্যক্রম আরো সম্প্রসারণ করা হবে বলে উল্লেখ করেন। শিক্ষাক্ষেত্রে বাংলাদেশ সফল মন্তব্য করে তিনি বলেন, এ সাকসেস স্টোরি কিভাবে অন্যান্য দেশে প্রয়োগ করা যায়, এডিবি সে চেষ্টা করবে। মনমোহন পরকাশ বলেন, আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি এডিবি’র প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ সফর করবেন। শিক্ষামন্ত্রী বাংলাদেশে শিক্ষাক্ষেত্রে এডিবি’র সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানান এবং এ সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরো বৃদ্ধি পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 
 
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমেদ ও মো. মহিউদ্দিন খান এসময় উপস্থিত ছিলেন। 
#
আফরাজুর/রিফাত/শহিদ/রফিকুল/শামীম/২০১৮/১৫১৭ ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১৪৪ 

সকল আন্তর্জাতিক মানসংস্থার সাথে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করবে বিএবি 

ঢাকা, ১ মাঘ (১৪ জানুয়ারি) : 

বিশ্বব্যাপী পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন ও অ্যাক্রেডিটেশন কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত সকল আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথ সহযোগিতার লক্ষ্যে বিএবি স্মারক স্বাক্ষর করবে বলে জানিয়েছেন শিল্পসচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি পণ্যের গ্রহণযোগ্যতা বৃদ্ধি ও পণ্য বহুমুখীকরণের জন্য এ উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হবে। এর ফলে অভ্যন্তরীণভাবে ভোক্তাসাধারণের সুস্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে বাংলাদেশি পণ্যের অবস্থান সুসংহত হবে।  
আজ শিল্প মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন বোর্ড (বিএবি) আয়োজিত ‘আইএসও/আইইসি ১৭০২৫:২০১৭ মানবিষয়ক’ পাঁচ দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনকালে শিল্পসচিব একথা বলেন। 
বিএবি’র মহাপরিচালক মো. মনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. এনামুল হক  ও সহিদুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।  
শিল্পসচিব বলেন, শুধু অভ্যন্তরীণ বাজারের চাহিদা মিটিয়ে শিল্পকারখানা টেকসই করা যাবে না। বিশ্ববাজারে রপ্তানি বাড়াতে পণ্যের গুণগত মানোন্নয়ন, বাজার সম্প্রসারণ ও বহুমুখীকরণের উদ্যোগ নিতে হবে। এ লক্ষ্যে উৎপাদিত পণ্যের গুণগতমান আন্তর্জাতিকমানে উন্নত করতে হবে। 
উল্লেখ্য, বাংলাদেশে স্থাপিত জাতীয় ও বহুজাতিক টেস্টিং এবং ক্যালিব্রেশন ল্যাবরেটরিগুলোর সক্ষমতা ও জনবলের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ২৫ জন অ্যাসেসর, ল্যাবরেটরি ম্যানেজার ও ল্যাবরেটরি বিশেষজ্ঞ অংশ নেন।  
#

জলিল/রিফাত/রফিকুল/অনসূয়া/আসমা/২০১৮/১২৪৫ ঘণ্টা  

Todays handout (8).docx Todays handout (8).docx

Share with :
Facebook Facebook