তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৭ নভেম্বর ২০১৮

তথ্যবিবরণী - 6/11/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ৩০৬৩
সিটি কর্পোরেশন এলাকায় শিশুদের জীবন মানের উন্নয়ন
ইউনিসেফের সাথে স্থানীয় সরকার বিভাগের চুক্তি স্বাক্ষর
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) :
আজ সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে দেশের আটটি সিটি কর্পোরেশনের শিশুদের জীবন মানের উন্নয়নে কর্মসূচি বাস্তবায়নে যৌথভাবে কাজ করার লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার বিভাগ ও ইউনিসেফ (টঘওঈঊঋ)-এর মধ্যে এক যৌথ কর্মপরিকল্পনা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। 
স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান ও ইউনিসেফ বাংলাদেশের প্রতিনিধি এদোয়ার্ড বেইগবেডার নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে যৌথ কর্মপরিকল্পনা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এ সময় মন্ত্রণালয় ও উন্নয়ন সহযোগী সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় শিশুদের জন্য নির্ধারিত লক্ষ্যসমূহ অর্জনে ঢাকা দক্ষিণ, ঢাকা উত্তর, গাজীপুর, চট্টগ্রাম, খুলনা, সিলেট, বরিশাল ও রংপুর সিটি কর্পোরেশন এলাকায় স্থানীয় সরকার বিভাগ ও ইউনিসেফ যৌথ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবে। এই কর্মসূচিসমূহের মাধ্যমে  শহুরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর প্রায় ৫ লাখ শিশু স্বাস্থ্য, পুষ্টি, শিক্ষা, শিশু সুরক্ষা, পানি, স্যানিটেশনসহ মৌলিক সামাজিক সেবা পাবে। ভবিষ্যতে এ সিটি কর্পোরেশনসমূহকে শিশুবান্ধব হিসেবে গড়ে তুলতে শিশুবান্ধব নগরী ফ্রেমওয়ার্কের (সি এফ আই সি) আওতায় কর্মকা- বাস্তবায়ন করা হবে।
স্থানীয় সরকার বিভাগ ২০১৮-১৯ সালে আটটি সিটি কর্পোরেশনে পাইলট প্রোগ্রামের আওতায় প্রযুক্তিগত নির্দেশনা ও সহায়তা প্রদান করবে। ২০১৯ সালের মধ্যে ইউনিসেফ আটটি সিটি কর্পোরেশনে কর্মপরিকল্পনাসমূহ বাস্তবায়নে ৪ কোটি টাকা অনুদান দেবে। 
#
জাকির/মাহমুদ/পারভেজ/জয়নুল/২০১৮/২০৪০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ৩০৬২
‘উইমেন এমপিস অভ্ দ্য ওয়ার্ল্ড’ সম্মেলনে যোগ দিতে স্পিকারের ঢাকা ত্যাগ
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) :
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আজ ‘উইমেন এমপিস অভ্ দ্য ওয়ার্ল্ড’ সম্মেলনে যোগ দিতে সন্ধ্যায় লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করেন। সম্মেলনটি লন্ডনের হাউজ অভ্ কমন্সে ০৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।
স্পিকারকে বিদায় জানাতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোঃ আবদুর রব হাওলাদারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এ সময়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন।
স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সম্মেলনশেষে ১০ নভেম্বর লন্ডন থেকে দেশে ফিরবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।
জাতীয় সংসদের গণসংযোগ অধিশাখা থেকে এসব তথ্য জানা যায়।
#
তারিক/ফারহানা/পারভেজ/জয়নুল/২০১৮/২০১০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর :  ৩০৬১
মানবকল্যাণে চাই নিরাপদ, সহজলভ্য, বাকস্বাধীন ইন্টারনেট
                                                   -- তথ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) :
তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্নেন্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট  হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘ক্রমপ্রসারমান ডিজিটাল জগতকে মানুষ ও সমাজের কল্যাণে কাজে লাগাতে প্রয়োজন  নিরাপদ, সহজলভ্য, বাকস্বাধীন, বিশ্বাসযোগ্য ও টেকসই ইন্টারনেট ব্যবস্থাপনা।'
আজ রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্নেন্স ফোরামের ১৩তম বার্ষিক সম্মেলনে  প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন।
হাসানুল হক ইনু বলেন, প্রসারিত ডিজিটাল সমাজের জন্য ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণ নয়; ব্যবস্থাপনায় মনোযোগী হতে হবে। এজন্য ডিজিটাল বৈষম্য ঘুচিয়ে গণতন্ত্রায়ণ নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, গণতন্ত্র ও ডিজিটাল সমাজকে বাঁচাতে হলে ডিজিটাল সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ঐক্যমত থাকতে হবে। যারা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়, তারা জাতীয় শত্রু।   
বিগ ডেটা না জানলে আমাদের নগর পরিকল্পনা করা সম্ভব হবে না। তাই এখনই বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যসূচিতে বিগ ডেটা বিষয়টি অন্তর্ভুক্তির প্রস্তাব দেন তথ্যমন্ত্রী। যেহেতু ইন্টারনেট সমগ্র বিশ্বকে সমতল করে দিচ্ছে সে জন্য এ বিষয়ে গবেষণায় জোরদার করতে হবে, বলেন তিনি।  
হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘মানব সমাজের উপকারেই ইন্টারনেট ব্যবহার হবে। ক্ষতির জন্য নয়। তাই আগামী দিনের ডিজিটাল সমাজ ব্যবস্থাপনার জন্য স্থানীয় পর্যায়ে ‘ইন্টারনেট প্রশাসন’ এখন আমাদের গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। প্রাপ্যতা, সহজলভ্যতা, টেকসই, প্রবেশগম্যতা ও অন্তর্ভুক্তির নীতি বাস্তবায়নের পাশাপাশি বিশ্বাসযোগ্যতা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্যই প্রয়োজন ইন্টারনেট প্রশাসনের।’
মানবাধিকার ও বাকস্বাধীনতা বান্ধব ডিজিটাল সমাজ গড়ে তুলতে ইন্টারনেটের প্রশাসনকে সর্বজনীন হতে হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'সব বয়স, লিঙ্গ ও শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে ইন্টারনেট ছড়িয়ে দেওয়ার বা এর সঙ্গে পরিচিত করিয়ে দেওয়ার কাজে রাষ্ট্রের আরো মনোযোগী হতে হবে। এ ক্ষেত্রে মাতৃভাষায় ইন্টারনেট চর্চার আইনগত বাধ্যবাধকতা দরকার। তাহলেই বাংলা বিষয়বস্তুর উন্নয়ন হবে।'
সম্মেলনের উদ্বোধন পর্বে বক্তব্য রাখেন বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ড. আকরাম এইচ চৌধুরী ও ফ্রেডরিক নওম্যান ফাউন্ডেশন ফর ফ্রিডোমের বাংলাদেশের আবাসিক প্রতিনিধি ড. নাজমুল হোসাইন। বিভিন্ন ক্ষেত্রের অংশীজনদের মধ্যে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আবু জাফর মু. সাইফুল আলম ভূইয়া, নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি’র মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তাফা কামাল, বিএনএনআরসি’র প্রধান নির্বাহী এএইচএম বজলুর রহমান, সাউথ এশিয়া আর্টিকেল ১৯ এর আঞ্চলিক প্রতিনিধি ফারুক ফয়সাল, এফবিসিসিআই’র পরিচালক শাফকাত হায়দার, ডট অর্গ এর উপদেষ্টা টিআই নুরুল কবির, আইএসপিএবি’র প্রেসিডেন্ট আমিনুল হাকিম। বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্নেন্স ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আব্দুল হক অনু সম্মেলন পরিচালনা করেন।
#
আকরাম/মাহমুদ/পারভেজ/সেলিমুজ্জামান/২০১৮/১৯৩০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর :  ৩০৬০
দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সরকারের দক্ষতার ফসল
                                        -- পরিকল্পনামন্ত্রী
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) :
সকল শ্রেণির মানুষের সমন্বিত তৎপরতায় এবং সরকারের দক্ষতায় দেশের অর্থনীতি অসাধারণ গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে।  গত দশ বছর গড়ে ৬ দশমিক ৭১ শতাংশ হারে জিডিপি’র প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছে। এখন প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ। স্বাধীনতার পর অর্থনীতির আকার ১০০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হতে ৩৮ বছর লেগেছে। আর  মাত্র সাত বছরে তা দ্বিগুণ হয়ে ২০০ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করেছে। এখন তা ২৭৪ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। সরকারি বিনিয়োগ জিডিপি’র ৫ দশমিক ৬ শতাংশ থেকে ৮ দশমিক ২ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। বেসরকারি বিনিয়োগ ২০০৫-০৬ এর ৯৯ হাজার ২৭১ কোটি টাকা হতে প্রায় চারগুণ বেড়ে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৩ কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের পরিমাণ ২০০৫-০৬ অর্থবছরে ছিল ৭৪৪ মিলিয়ন ডলার যা তিন গুণ বেড়ে ২ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। মাথাপিছু আয় বেড়েছে তিনগুণেরও বেশি, ২০০৫-০৬ অর্থবছরে মাথাপিছু আয়ের পরিমাণ ছিল ৫৪৩ মার্কিন ডলার যা ২০১৭-১৮ অর্থবছরে তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৭৫১ মার্কিন ডলারে। 
পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আজ কুমিল্লার লালমাইয়ে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৮ এর লক্ষ্যে গঠিত নির্বাচনি আসন কুমিল্লা-১০ এর কুমিল্লা সদর দক্ষিণ, লালমাই ও নাঙ্গলকোট উপজেলার আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সমাবেশে বর্তমান সরকারের গত দশ বছরের অর্থনৈতিক এলাকার উন্নয়নের তুলনামূলক চিত্র তুলে ধরতে গিয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব তথ্য তুলে ধরেন।
পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, চারদলীয় জোট সরকারের শেষ বছরে মূল্যস্ফীতি ছিল ৭ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং ১/১১-এর সরকারের সময় ২০০৭-০৮ অর্থবছরে ১২ দশমিক ৩ শতাংশ। গত তিন বছর সাত শতাংশের ওপর জিডিপি’র প্রবৃদ্ধি হওয়া সত্ত্বেও মূল্যস্ফীতি ৬ দশমিক শূন্য শতাংশের নিচে সীমাবদ্ধ রাখা সম্ভব হয়েছে। দারিদ্র্যের হার ২০০৫ সালের ৪০ দশমিক শূন্য শতাংশ থেকে ২২ দশমিক শূন্য শতাংশে এবং আর অতিদারিদ্র্যের হার ২৫ দশমিক ১ শতাংশ থেকে ১১ দশমিক ৩ শতাংশে নেমে এসেছে। ১৯৯২ সালের পর হতে বর্তমান সময় পর্যন্ত বাংলাদেশে মোট যত লোক দারিদ্র্যমুক্ত হয়েছে তার প্রায় ৫০ শতাংশই ঘটেছে বর্তমান সরকারের সময়কালে। ২০০১-০৬ সময়কালের তুলনায় ২০০৯-১৭ সময়কালে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে বাজেট বরাদ্দ এবং সুবিধাভোগীর সংখ্যা কয়েকগুণ বাড়ানো হয়েছে। প্রত্যাশিত গড় আয়ু ৬৬ দশমিক ৫ বছর থেকে বেড়ে হয়েছে ৭২ দশমিক শূন্য বছর। একই সময়ে শিশু মৃত্যুহার প্রতি হাজার জীবিত জন্মে ২০০৬ সালে ছিল ৪৫ জন, যা এখন ২৮ জনে নেমে এসেছে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরের বাজেটের আকার ছিল ৬৪ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সাতগুণ বেশি বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৬৫ হাজার কোটি টাকা। ২০০৯-১০ অর্থবছরের তুলনায় ২০১৭-১৮ অর্থবছরে এডিপি বরাদ্দ এবং ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় চার গুণ। বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পের সংখ্যাও এই সময়ে প্রায় ৪২ শতাশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গড়ে এ সময় প্রতিবছর প্রায় ৯৩ শতাংশ এডিপি ব্যয়িত হয়েছে। রাজস্ব-জিডিপি’র অনুপাত ৯ দশমিক ১ শতাংশ থেকে ১০ দশমিক ৮ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে ২০১৬-১৭ অর্থবছর পর্যন্ত নয় বছরে রাজস্ব আয়ের পরিমাণ তিনগুণেরও বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ ছিল ১০ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার। দশ বছরে রপ্তানি আয়ের পরিমাণ চারগুণ বৃদ্ধি হয়েছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সেবা খাতসহ মোট রপ্তানি আয় ৪০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে প্রবাসী আয়ের পরিমাণ তিনগুণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ দশমিক ৯৮ বিলিয়ন ডলার যা ২০০৫-০৬ অর্থবছরে ছিল ৪ দশমিক ৮০ বিলিয়ন ডলার। ২০০৫-০৬ অর্থবছর শেষে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ৩ দশমিক ৪৮ বিলিয়ন ডলার যা এখন দশগুণের বেশি বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারে, যা প্রায় সাত মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সমপরিমাণ। বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা বেড়েছে চারগুণ। 
উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন ধরে রাখতে হলে সরকারের ধারাবাহিকতা রাখতে হবে। কেননা অতীত ইতিহাস এবং বর্তমানের তুলনামূলক চিত্রই বলে দেয় বাংলাদেশকে উন্নত দেশ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই, আওয়ামী লীগের কোন বিকল্প নেই। তাই সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। 
#
তৌহিদুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/সেলিমুজ্জামান/২০১৮/১৮২০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ৩০৫৯ 
গণপূর্ত অধিদপ্তরে উপসহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে ৮৩ জনের নিয়োগ   
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) : 
বাংলাদেশ সরকারি কর্মকমিশনের সুপারিশকৃত ৮৩ জন প্রার্থীকে গণপূর্ত অধিদপ্তরে উপসহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। 
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ৩১ অক্টোবর ২০১৮ এ সংক্রান্ত এক প্রজ্ঞাপন জারি করে। ২০ নভেম্বর ২০১৮ তারিখের মধ্যে নিয়োগপ্রাপ্ত উপসহকারী প্রকৌশলীগণকে প্রধান প্রকৌশলী গণপূর্ত অধিদপ্তর এর নিকট যোগদানপত্র পেশ করতে বলা হয়েছে।
#
সুরাইয়া/অনসূয়া/জসীম/আসমা/২০১৮/১৬৪৮ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ৩০৫৮ 
তথ্য অধিকার জনগণের ক্ষমতায়নের অন্যতম হাতিয়ার
                                - প্রধান তথ্য কমিশনার 
ঢাকা, ২২ কার্তিক (৬ নভেম্বর) :
তথ্য অধিকার জনগণের ক্ষমতায়নের অন্যতম প্রধান হাতিয়ার। তাই জনগণের ক্ষমতায়নের জন্য তথ্যে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা আবশ্যক। জনগণের তথ্য অধিকার নিশ্চিত করা হলে সরকারি প্রতিষ্ঠান এবং সরকারি ও বিদেশি অর্থায়নে পরিচালিত বেসরকারি সংস্থার বিভিন্ন কর্মকা-ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বৃদ্ধি পাবে, দুর্নীতিহ্রাস পাবে এবং সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হবে। ৫ নভেম্বর ‘কমিউনিটি রেডিও : তথ্যে প্রবেশাধিকারের মাধ্যমে তৃণমূল মানুষের জীবন ও জীবিকা উন্নয়ন’ সংলাপে প্রধান তথ্য কমিশনার মরতুজা আহমদ প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। 
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার একটি স্থানীয় হোটেলে বাংলাদেশ এনজিওস নেটওয়ার্ক ফর রেডিও এন্ড কমিউনেশন এবং ফ্রিডরিখ নিউম্যান ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের যৌথ সহযোগিতায় এবং রেডিও মহানন্দার আয়োজনে প্রয়াস মানবিক উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি অধ্যক্ষ মো. আনোয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।
প্রধান তথ্য কমিশনার বলেন, বাংলাদেশে প্রত্যেকটি আইন জনগণের ওপর প্রয়োগ করা হয় কিন্তু তথ্য অধিকার আইন জনগণ কর্তৃপক্ষের উপর প্রয়োগ করে। জনগণ এই আইনটি প্রয়োগ করে স্বচ্ছতা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। জনগোষ্ঠী তথ্য অধিকার আইন প্রয়োগে উৎসাহিত হলে, স্থানীয় প্রতিষ্ঠানসমূহ স্ব-প্রণোদিত হয়ে তথ্য প্রদানে সচেষ্ট হবে।
জেলা প্রশাসক এ জেড এম নূরুল হক, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর হোসেন এবং অধ্যক্ষ (অব.) সুলতানা রাজিয়া এ সংলাপে বক্তব্য রাখেন।   
#
লিটন/অনসূয়া/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৪২০ ঘণ্টা 
তথ্যববিরণী                                                                                                               নম্বর : ৩০৫৭                      
দক্ষতা বৃদ্ধতিে প্রশক্ষিণরে ভূমকিা গুরুত্বর্পূণ
                                       -স্পকিার
ঢাকা, ২২ র্কাতকি (৬ নভম্বের) : 
স্পকিার ড. শরিীন শারমনি চৌধুরী আজ জাতীয় সংসদরে শপথ কক্ষে বাংলাদশে জাতীয় সংসদ, জাতসিংঘ উন্নয়ন তহবলি (ইউএনডপি)ি ও কমনপারপাজ ইন্টারন্যাশনাল এর যৌথ আয়োজনে ওর্য়াকশপ অন 'লডিারশপি ট্রনেংি ফর সক্রেটোরয়িটে অফসিয়িালস অব বাংলাদশে র্পালামন্টে' র্শীষক দু’দনিব্যাপী র্কমশালার উদ্বোধন করনে।
ড. শরিীন শারমনি চৌধুরী বলনে, র্বতমান প্রতযিোগতিার্পূণ পশোয় নজিদেরে যোগ্য, দক্ষ ও সময়োপযোগী পশোজীবী হসিবেে গড়ে তুলতে প্রশক্ষিণরে ভূমকিা গুরুত্বর্পূণ। এ প্রশক্ষিণরে অভজ্ঞিতা র্কমর্কতাগণকে তাদরে নজি অধক্ষিত্রেে নতেৃত্ব প্রদানে সক্ষম করে তুলবে বলে তনিি আশাবাদ ব্যক্ত করনে।
স্পকিার  বলনে, প্রধানমন্ত্রী শখে হাসনিার দকি নর্দিশেনায় সংসদ সদস্য ও সংসদ সচবিালয়রে র্কমর্কতাদরে দক্ষতাবৃদ্ধরি র্কমসূচি গ্রহণ করা হয়ছে।ে তনিি বলনে,দশম জাতীয় সংসদে র্কমর্কতাদরে একটি বড় দলকে ভারতরে লোকসভায় প্রশক্ষিণ দওেয়া হয়ছে।ে ইংল্যান্ডরে ওয়স্টেমনিস্টিার ফাউন্ডশেনরে সাথওে র্কমর্কতাদরে দক্ষতাবৃদ্ধমিূলক প্রশক্ষিণ চলমান রয়ছে।ে ইউএনডপিরি মাধ্যমে ইতমিধ্যে সংসদ সদস্যদরে সক্ষমতাবৃদ্ধরি জন্য প্রশক্ষিণ দওেয়া হয়ছে।ে র্কমর্কতাগণ সংসদ পরচিালনায় গুরুত্বর্পূণ ভূমকিা তথা সাচবিকি সহায়তা দয়িে থাকনে-সে কারণে র্কমর্কতাদরে প্রশক্ষিণরে মাধ্যমে দক্ষ করে গড়ে তোলা খুবই জরুর।ি
অনুষ্ঠানে সভাপতত্বি করনে বাংলাদশে জাতীয় সংসদ সচবিালয়রে সনিয়ির সচবি ড. মো: আবদুর রব হাওলাদার।অনুষ্ঠানে বাংলাদশেে ইউএনডপি’ির কান্ট্রি ডরিক্টের সুদীপ্ত মুর্খাজী, ইউএনডপি’ির সনিয়ির কনসালটন্টে জাতরি পতিা বঙ্গবন্ধু শখে মুজবিুর রহমানরে দৌহত্রি রাদওয়ান মুজবি সদ্দিকি বব,ি কমনপারপাজ এর এশয়িা প্যাসফিকি চফি এক্সকিউিটভি আদরিুপা সনেগুপ্তা এবং কমনপারপাজ ইন্টারন্যাশনালরে চফি এক্সকিউিটভি এলসিন কর্বান উপস্থতি ছলিনে।
 দু’দনিব্যাপী র্কমশালায় বাংলাদশে জাতীয় সংসদ সচবিালয়রে ৩০ জন র্কমর্কতা অংশ নচ্ছিনে।
#
তারকি/অনসূয়া/সুর্বণা/আসমা/২০১৮/১৪১৪ ঘণ্টা 
Todays handout (6).docx Todays handout (6).docx

Share with :

Facebook Facebook