তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২১st অক্টোবর ২০১৮

তথ্যবিবরণী 21/10/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                        নম্বর : ২৯০৫
 
বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে স্পিকারের অভিনন্দন 
 
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ ২০১৮-এর প্রথম ম্যাচে জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে বাংলাদেশ জয়লাভ করায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।
এছাড়া, অভিনন্দন জানিয়েছেন ডেপুটি স্পিকার মোঃ ফজলে রাব্বী মিয়া এবং চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ।
 
#
 
তারিক/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২২৫০ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                        নম্বর : ২৯০৪
 
সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থা নারী উন্নয়নে প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে
                                                    --- মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা নারী উন্নয়নে প্রশংসনীয়  ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে পরিবার পরিকল্পনাকে জনপ্রিয় করতে এফপিএবি (ফ্যামিলি প্লানিং অ্যাসোসিয়েশন অভ্ বাংলাদেশ) অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। পরিবার পরিকল্পনা, প্রজনন স্বাস্থ্য ও নারী স্বাস্থ্য রক্ষায় এই সংস্থাটি যে কাজ করছে তা অব্যাহত রাখতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আরো সহযোগিতা করবে। 
প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর নয়া পল্টনে বাংলাদেশ পরিবার পরিকল্পনা সমিতির (এফপিএবি) প্রধান কার্যালয়ে শহিদ ময়েজউদ্দিন মিলনায়তনে ‘এফপিএবি লটারি ২০১৮’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এফপিএবি’র সভাপতি মোঃ মাসুদুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম এনডিসি, নির্বাহী পরিচালক ড. এএফএম মতিউর, অবৈতনিক মহাসচিব মিজানুর রহমান খান লিটন রহমান প্রমুখ।
সচিব নাছিমা বেগম বলেন, এফপিএবি এবং এর কাজ সম্পর্কে পূর্ব থেকেই তিনি অবহিত আছেন। সংস্থাটি সরকারি কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে বলে তিনি জানান। তিনি বলেন, নারীর ক্ষমতায়নের ফলে বর্তমানে নারীর গড় আয়ু আশানুরূপ বৃদ্ধি পেয়েছে।
উল্লেখ্য আগামী ১৫ ডিসেম্বর এফপিএবি’র লটারি ড্র অনুষ্ঠিত হবে। ২৫ লাখ টাকার প্রথম পুরষ্কারসহ মোট ৪০ লাখ টাকার ১ হাজার একটি পুরষ্কার প্রদান করা হবে। ২০ টাকা মূল্যমানের ১০টি সিরিজের লটারির টিকিট বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, মোবাইল কোম্পানি এবং এজেন্টের মাধ্যমে বিক্রি হবে।
#
 
খায়ের/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২১১৫ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ২৯০৩
 
প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করতে হবে
                               --- প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী
 
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, তথ্য প্রযুক্তির যুগে শিশুদের সাক্ষরতার পাশাপাশি দরকার গাণিতিক দক্ষতা। সমস্যা সমাধানে দক্ষতাই হবে উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি। সে লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় শিক্ষার্থীদের গণিতে দক্ষ করে গড়ে তোলার জন্য ‘গণিত অলিম্পিয়াড কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের গাণিতিক দক্ষতা বৃদ্ধির সম্ভাব্যতা যাচাই’  শীর্ষক একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে । দেশের ১৭ জেলার ১৭টি উপজেলায় ৮০টি বিদ্যালয়ে পাইলট হিসেবে এ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে। অচিরেই সারাদেশে ৬৫ হাজার বিদ্যালয়ে এ প্রকল্পটি ছড়িয়ে দেওয়া হবে বলে মন্ত্রী জানান। তিনি বলেন, আজকের শিশুরা আগামীতে এগিয়ে নিয়ে যাবে উন্নতির শিখরে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গামী শিশুরা বর্তমানে দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৯ শতাংশের বেশি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়ন করবে আজকের শিশুরাই। এজন্য প্রয়োজন প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করা। 
মন্ত্রী আজ মিরপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক গৃহীত ‘গণিত অলিম্পিয়াড কৌশল প্রয়োগের মাধ্যমে প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের গাণিতিক দক্ষতা বৃদ্ধির সম্ভাব্যতা যাচাই’ শীর্ষক প্রকল্পের উদ্বোধন এবং অবহিতকরণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। 
প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সভাপতি ও ইউনিভার্সিটি অভ্ এশিয়া প্যাসিফিক এর উপাচার্য জাতীয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী, বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াড কমিটির সহসভাপতি অধ্যাপক মুহাম্মাদ জাফর ইকবাল, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. এএফএম মনজুর কাদির ও অতিরিক্ত সচিব মোঃ গিয়াসউদ্দিন আহমেদ এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. আবু হেনা মোস্তফা কামাল এনডিসি। 
মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ গণিত অলিম্পিয়াডে গত দেড় দশকে গণিত শিক্ষায় এক নবজাগরণের সূচনা করেছে। শিক্ষার্থীদের গণিতভীতি দূর করে তাদেরকে গণিতপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করেছে। বিশ্ব পরিম-লে বাংলাদেশ গণিত দলের সাফল্য ঈর্ষণীয়। আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে স্বর্ণপদক পাওয়ার পাশাপাশি বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার সেরা মুকুটও অর্জন করেছে। 
এ সময় মন্ত্রী আন্তর্জাতিক গণিত অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশে একমাত্র স্বর্ণপদক প্রাপ্ত মোঃ জায়েদ চৌধুরীকে সম্মননা প্রদান করেন।
#
রবীন্দ্রনাথ/ফারহানা/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/১৯৫০ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৯০২
 
সংস্কৃতি চর্চা মানুষের মানবিক উন্নয়ন ঘটায়
                   --- সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী
 
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের চিত্র বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, সেখানে অংশগ্রহণকারীদের শতকরা ৮০ ভাগ মেয়ে আর মাত্র ২০ ভাগ ছেলে। ছেলেরা কেন সংস্কৃতি বিমুখ এর সঠিক উত্তর খুঁজতে হবে। ছেলেদের আরো বেশি সংস্কৃতি মনস্ক হতে হবে এবং সংস্কৃতি চর্চা করতে হবে।
মন্ত্রী আজ রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অভ্ ফেইমে পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) আয়োজিত ‘বাংলাদেশ কিশোর-কিশোরী সম্মেলন ২০১৮’ এর সমাপনী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্বে শুভেচ্ছা বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, ‘সংস্কৃতি চর্চার প্রতি ছেলেমেয়েদের আগ্রহ ও উৎসাহের কমতি নেই। আমাদের সে পথটি দেখিয়ে দিতে হবে। সংস্কৃতি চর্চা মানুষের মানবিক উন্নয়ন ঘটায় এবং প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে ওঠতে সহায়তা করে। পিকেএসএফ সারাদেশের কিশোর-কিশোরীদের জন্য সে কাজটি করছে। সেজন্য তিনি তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান’।
এসময় পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর সভাপতি ড. কাজী খলীকুজ্জামান আহমদ ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল করিম উপস্থিত ছিলেন।
#
ফয়সল/সেলিম/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/১৯২০ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ২৯০১
 
‘বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষণ ও বাঙালির জন্ম ইতিহাস’ এবং
‘জনগণমন নন্দিত নেত্রী শেখ হাসিনা’ গ্রন্থপ্রকাশ
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর):
এদিন বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে গণগ্রন্থাগার সেমিনার হলে বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের উদ্যোগে মঞ্জুরুল আলম ‘বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষণ ও বাঙালির জন্ম ইতিহাস’ এবং আসমা জামান সম্পাদিত ‘জনগণমন নন্দিত নেত্রী শেখ হাসিনা’ গ্রন্থদ্বয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।  কাব্যশ্রী কবি কাজী রোজী এমপি অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন। 
বঙ্গবন্ধু লেখক পরিষদের সভাপতি গীতিকার এম আর মনজু’র সভাপতিত্বে জাফর রাজা চৌধুরী, কবি আসলাম সানী, আবৃত্তিকার ড. শাহাদৎ হোসেন নিপু, কবি সাফাত শফিক, ছড়াকার ইমরান পরশ, বই দু’টির সম্পাদক, প্রকাশক আরিফ নজরুল অনুষ্ঠানে অংশ নেন। 
#
আকরাম/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮৪৮ ঘণ্টা
 

তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ২৯০০

নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের জাতীয় সম্মেলনে তথ্যমন্ত্রী 
বিকশিত গণমাধ্যম আর সংকুচিত হবে না, নির্ভয়ে কাজ করুন 
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর):
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘বিকশিত গণমাধ্যম আর সংকুচিত হবে না, সাংবাদিকেরা নির্ভয়ে কাজ করুন।’ একইসাথে ডিজিটাল জগতে উৎপাত ও সাম্প্রদায়িকতার বিস্তার ঠেকাতে সংবাদমাধ্যমকে সরকারের সঙ্গে এক হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি। 
আজ ঢাকায় বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।
বাংলাদেশ প্রেস ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনুর সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী।
‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার যখন গণতন্ত্র ও গণমাধ্যমকে স্মরণকালে সবচেয়ে বিকশিত করছে, উগ্রবাদ ও সাম্প্রদায়িকতাই তখন গণতন্ত্র, গণমাধ্যম এবং সমাজের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হিসেবে দাঁড়িয়েছে’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, উগ্রবাদের হুমকি ডিজিটাল সমাজেও ছড়িয়ে পড়েছে। এর বিরুদ্ধে লড়তে সরকার ও সংবাদমাধ্যমকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। ‘যে কোনো আইন পরীক্ষা করা যায়, সংশোধন করা যায়’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমি আশ্বস্ত করতে পারি, গণমাধ্যমের বিরুদ্ধে কাজে লাগানোর জন্য এ আইন নয়।
সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনু এ সময় নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের ১৭ বছরের কর্মযজ্ঞ তুলে ধরেন। বিশেষ অতিথি তৌফিক ইমরোজ খালিদী নারী সাংবাদিকের সংখ্যা আগামী সম্মেলনের আগে ১০ গুণ বৃদ্ধির জন্য উৎসাহ দেন। ২০০১ সালে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের দিনব্যাপী এ সম্মেলনে সারা দেশ থেকে প্রতিনিধিরা অংশ নেন। কেন্দ্রেও অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সেতারা মূসা ১৯৫০ এর দশকে তার সাংবাদিকতার দিনগুলোর কথা স্মরণ করেন। 
অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক পারভীন সুলতানা ঝুমা এবং কোষাধ্যক্ষ আখতার জাহান মালিক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৮৯৯
 
গুণগতমান সম্পন্ন সেবা দিতে বিদ্যুৎ বিতরণকারী সংস্থাগুলোকে আরো আধুনিক হতে হবে
                                                                          ---বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, গুণগতমান সম্পন্ন সেবা দিতে বিদ্যুৎ বিতরণকারী সংস্থাগুলোকে আরো আধুনিক হতে হবে। বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম নিজেদেরই প্রস্তুত করার উদ্যোগ নিতে হবে। বিদ্যুৎ উৎপাদনের সাথে সাথে বিতরণ ও সঞ্চালন ব্যবস্থার উন্নয়ন করে নিরবচ্ছিন্ন বৈদ্যুতিক সেবা দিতে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।   
প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় বিদ্যুৎ ভবনে স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার তৈরির লক্ষ্যে যৌথ উদ্যোগে গঠিত বাংলাদেশ স্মার্ট ইলেকট্রিক্যাল কোম্পানি লি. গঠন সংক্রান্ত চুক্তিস্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, একটি কোম্পানি প্রি-পেমেন্ট প্রস্তুতে এগিয়ে এসেছে, অন্য কোম্পানিরও এগিয়ে আসা উচিত। যেহেতু সরকারি কোম্পানি আছে শেয়ার বাজার হতে অর্থ সংগ্রহ করা কোনো সমস্যা হবে না। 
ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লি. (ওজোপাডিকো), বাংলাদেশ এবং হেক্সিং ইলেকট্রিক্যাল কোং লি. চায়নার মধ্যে ৫১ : ৪৯ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ‘বাংলাদেশ স্মার্ট ইলেকট্রিক্যাল  কোম্পানি লি.’ নামে বাংলাদেশে একটি স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার ম্যানুফ্যাকচারিং প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য চুক্তিস্বাক্ষর হয়েছে। বিদ্যুৎ খাতে গ্রাহক সেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার প্রতিটি গ্রাহককে  প্রি-পেমেন্ট মিটারের আওতায় আনার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ফলে বাংলাদেশে প্রচুর স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটারের চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশে নিজস্ব প্রি-পেমেন্ট মিটার উৎপাদনের ব্যবস্থা না থাকায় এখন পর্যন্ত প্রি-পেমেন্ট মিটার আমদানি করা হচ্ছে। এই চাহিদা মেটাতে ওজোপাডিকো এবং হেক্সিং ইলেকট্রিক্যাল কোং লি. যৌথ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে বাংলাদেশের খুলনায় এ প্ল্যান্টটি স্থাপন করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এতে অনুমোদিত মূলধন ৫০০ মিলিয়ন টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন ২৮৬ মিলিয়ন টাকা। হেক্সিং-এর পক্ষে চেয়ারম্যান ঝু লিয়াং ঝাং (তযড়ঁ খরধহম তযধহম) ও ওজোপাডিকো’র পক্ষে কোম্পানিটির সচিব আব্দুল মোতালেব চুক্তিতে স¦াক্ষর করেন। 
ওজোপাডিকো’র চেয়ারম্যান ও বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোসাঃ মাকসুদা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস ও পিডিবি’র চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ বক্তব্য রাখেন।
#
আসলাম/সেলিম/মোশারফ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/১৯১০ঘণ্টা
 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ২৮৯৮

যুগ্মসচিব ফয়সল শাহের মৃত্যুতে জনপ্রশাসন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও সচিবের  শোক

ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব এবং পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসমূহের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মোঃ ফয়সল শাহ আজ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ------- রাজিউন।

ফয়সল শাহ বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের একাদশ ব্যাচের একজন কর্মকর্তা। মরহুমের নামাজে জানাজা আজ বাংলাদেশ সচিবালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। তাঁকে দক্ষিণ খান কবরস্থানে দাফন করা হবে।

মোঃ ফয়সল শাহের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক এবং সচিব ফয়েজ আহম্মদ।

এক শোক বার্তায় তাঁরা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

#

মাসুম/সেলিম/রফিকুল/রেজাউল/২০১৮/১৮৩২ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ২৮৯৭
 
শিক্ষার মান উন্নয়নে অধ্যক্ষদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে
                          -- শিক্ষামন্ত্রী
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর):
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, কলেজ শিক্ষার সার্বিক উন্নয়নে অধ্যক্ষবৃন্দকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। শিক্ষার্থীরা যাতে কলেজ থেকে মানসম্পন্ন শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে সেদিকে নজর দিতে হবে। কলেজ থেকে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ করে শিক্ষার্থীরা যাতে সমাজের সার্বিক উন্নয়ন দক্ষতা অর্জন করে বাস্তব জীবনে তা কাজে লাগাতে পারে, তার উপর জোর দিতে হবে।
শিক্ষামন্ত্রী আজ রাজধানীর সেগুনবাগিচায়  আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে  কলেজ শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্প (সিইডিপি)- এর আওতায় আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন। 
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কলেজগুলোতে অবকাঠামো, শিক্ষক সংখ্যা ইত্যাদি বিবেচনা করে ছাত্র ভর্তি করতে হবে। অবকাঠামো ও শিক্ষক অনুপাতে বেশি ছাত্র ভর্তি করলে শিক্ষার মান নিশ্চিত করা সম্ভব হবে না। এ বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষগণকে সতর্ক থাকতে হবে। তিনি বলেন, শিক্ষার বিভিন্ন স্তরে মান উন্নয়নের জন্য সরকার অনেকগুলো প্রকল্প গ্রহণ করেছে। কলেজ শিক্ষার মান, শিখন ও শিক্ষণ ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং  পরিচালনা মান উন্নয়নের জন্য ’কলেজ শিক্ষা উন্নয়ন প্রকল্প’ গ্রহণ করা হয়েছে।  
কলেজ শিক্ষাকে আরো উন্নত মানে ও পর্যায়ে নিয়ে আসাই এ প্রকল্পের মূল লক্ষ্য উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এ প্রকল্পের আওতায় ৭০০ অধ্যক্ষকে ইউনিভার্সিটি অভ্ নটিংহাম মালয়েশিয়া থেকে ‘এমএ ইন এডুকেশনাল লিডারশিপ এন্ড ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। ৩০০ শিক্ষককে একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার ট্রেইনার প্রশিক্ষণ (এমএ ইন এডুকেশন) দেয়া হবে। দেশে ৫০০ শিক্ষককে ফিউচার লিডারশিপ প্রোগ্রামে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। আরো ৭ হাজার কলেজ শিক্ষককে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। 
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. হারুন-অর-রশিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের  চেয়ারম্যান প্রফেসর  আবদুল মান্নান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ সোহরাব হোসাইন, অতিরিক্ত সচিব ড. মোঃ মাহামুদ-উল-হক, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এম এ মান্নান, বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র অপারেশন অফিসার ড. মোঃ মোখলেসুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্য বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের শিক্ষক ড. নাজমা শাহীন এবং সিইডিপি প্রকল্প পরিচালক এ কে এম মুখলেছুর রহমান। সরকারি ও বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষগণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।
শারদীয় শুভেচ্ছা বিনিময়
শিক্ষামন্ত্রী পরে রাজধানীর পরিবহন পুল ভবনে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সভাকক্ষে দুর্গাপূজোত্তর কর্মকর্তাদের সাথে শারদীয় শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। হাজার বছর ধরে এ জনপদে হিন্দু-মুসলিম-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান পাশাপাশি অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে বসবাস করে। স্ব স্ব ধর্ম, আচার-অনুষ্ঠান ও লৌকিকতা পালন করে। কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত সচিব এ কে এম জাকির হেসেন ভূইয়া, অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, যুগ্মসচিব অজিত কুমার ঘোষ ও উপসচিব সুবোধ চন্দ্র ঢালী বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিভিন্ন দপ্তর প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।
প্রকল্প পরিচালকের মৃত্যুতে শিক্ষামন্ত্রীর শোক 
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন ‘অধিকসংখ্যক শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ সৃষ্টি (লক)’ শীর্ষক প্রকল্পের পরিচালক ও যুগ্মসচিব ফয়সল শাহ-এর আকস্মিক মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি মরহুমের রূহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান। শিক্ষামন্ত্রী সচিবালয় মসজিদে মরহুমের নামাজে জানাজায় অংশগ্রহণ করেন। 
#
আফরাজ/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৮২৪ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৮৯৬   
 
‘গ্লোবাল মাইগ্রেশন কম্প্যাক্ট’ প্রস্তাবনাটি চূড়ান্ত করায় সদস্য রাষ্ট্রসমূহকে 
রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন এর অভিনন্দন  
 
 
নিউইয়র্ক, ২১ অক্টোবর :
 
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মানবপাচার রোধে জিরো টলারেন্স এবং প্রবাসে শ্রমিক নিয়োগ খরচ হ্রাস সংক্রান্ত বৈশ্বিক আহ্বান জাতিসংঘে তুলে ধরলেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। ১৯ অক্টোবর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনের ‘বিশ্বায়ন ও পারস্পারিক নির্ভরশীলতা’ বিষয়ক এক আলোচনায় বক্তব্য প্রদানকালে এই আহ্বান জানান তিনি। 
রাষ্ট্রদূত মাসুদ আন্তর্জাতিক অভিবাসন দিবসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রদত্ত বক্তব্যের অংশ বিশেষ উদ্বৃত করে বলেন, ‘মানবপাচার রোধ এবং প্রবাসে শ্রমিক নিয়োগ খরচ হ্রাস করে তা সহনীয় পর্যায়ে আনতে প্রযোজ্য নীতিমালা ও পদক্ষেপসমূহ বাস্তবায়নে বিশ্বসম্প্রদায়কে অবশ্যই একসাথে এবং সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে’। 
রাষ্ট্রদূত আরো বলেন, আন্তর্জাতিক সীমানা অতিক্রম করে প্রায় ২৫৮ মিলিয়ন অভিবাসী মানুষের গতিশীলতা এ বিশ্বে একটি অপরিহার্য বিষয় যা অনুধাবন করে বাংলাদেশ ২০১৬ সালে প্রথমবারের মতো অভিবাসী মানুষদের কল্যাণে জাতিসংঘে আলাদাভাবে ‘গ্লোবাল মাইগ্রেশন কম্প্যাক্ট’ এর প্রস্তাবনাটি নিয়ে আসে। এই মাইগ্রেশন কম্প্যাক্টে সদস্য রাষ্ট্রসমূহের স্বপ্রণোদিত, কার্যকর ও ফলপ্রসূ অংশগ্রহণ এবং আলোচনা অব্যাহত রাখার কারণে আজ অভিবাসন বিষয়টি নিয়মিতভাবে জাতিসংঘের মূল আলোচ্য ধারায় স্থান করে নিয়েছে। এই কম্প্যাক্টের সবচেয়ে বড় অর্জন হলো অভিবাসন সংক্রান্ত বৈশ্বিক রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং তা বাস্তবায়নের জন্য একটি বৈশ্বিক প্লাটফর্ম প্রাপ্তি। একটি বৃহৎ অভিবাসী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে এটি বাংলাদেশের জন্য ইতিবাচক।
‘গ্লোবাল মাইগ্রেশন কম্প্যাক্ট’ চূড়ান্ত করার জন্য রাষ্ট্রদূত মাসুদ সদস্য রাষ্ট্রসমূহ, জাতিসংঘ মহাসচিব, মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি লুইস আরবরসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান।
বাংলাদেশের জাতীয় উন্নয়ন ও সম্পদ সৃষ্টিতে অভিবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের ব্যাপক ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন স্থায়ী প্রতিনিধি। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় উন্নয়ন নীতিমালায় অভিবাসনকে বিশেষ স্থান দিয়েছে মর্মেও উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ।
#
অনসূয়া/জসীম/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৩৩০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৮৯৫ 
জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) :
 
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২২ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে নি¤েœাক্ত বাণী প্রদান করেছেন :
“আজ জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উদ্যাপন করা হচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য ‘আইন মেনে চলবো, নিরাপদ সড়ক গড়বো’ যথার্থ ও সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত সদ্য স্বাধীন দেশ পুনর্গঠনে সড়ক অবকাঠামো স্বল্পসময়ের মধ্যে মেরামত ও পুনর্নির্মাণ করে সুষ্ঠু  যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় বর্তমান সরকার একবিংশ শতাব্দীর উপযোগী মহাসড়ক অবকাঠামো নির্মাণ ও বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। আমরা বিগত সাড়ে ৯ বছরে দেশের উন্নত সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামো নির্মাণে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। বিভিন্ন মহাসড়ক চারলেনে উন্নীত করা হয়েছে। নতুন নতুন রাস্তা, ব্রিজ-কালভার্ট, ফ্লাইওভার ও ওভারপাস নির্মাণ, পুনর্নির্মাণ ও মেরামত করা হয়েছে। আমরা টেকসই, নিরাপদ ও মানসম্মত সড়ক অবকাঠামো এবং সমন্বিত আধুনিক গণপরিবহণ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছি। 
টহরঃবফ ঘধঃরড়হং উবপধফব ড়ভ অপঃরড়হ ভড়ৎ জড়ধফ ংধভবঃু ২০১১-২০২০ এবং জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (ঝউএং) ২০৩০ এর অনুসমর্থনকারী হিসাবে এঙঅখ-৩.৬ অনুযায়ী বাংলাদেশ ২০২০ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ও নিহতের সংখ্যা অর্ধেকে নামিয়ে আনতে অঙ্গীকারবদ্ধ। এ লক্ষ্যে অপঃরড়হ চষধহ বাস্তবায়নাধীন আছে।  
আমি মনে করি, জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস পালনের মধ্য দিয়ে জনগণ নিরাপদ সড়ক বিষয়ে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি ট্রাফিক আইন মেনে চলতে আগ্রহী হবে। আমরা সকলে মিলে কাজ করলে অচিরেই এ দেশে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত হবে।  
আমি জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করছি।   
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু
বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”
#
ইমরুল/অনসূয়া/জসীম/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৩৩০ ঘণ্টা 
 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৮৯৪ 
জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী
ঢাকা, ৬ কার্তিক (২১ অক্টোবর) : 
 
  রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে নি¤েœাক্ত বাণী প্রদান করেছেন : 
“দেশে দ্বিতীয়বারের মতো জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস-২০১৮ উদ্যাপনের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। আমি আশা করি, এ আয়োজন নিরাপদ সড়ক ব্যবহারে জনগণের মাঝে ব্যাপক সচেতনতা সৃষ্টি করতে সক্ষম হবে।
টেকসই অর্থনৈতিক এবং সামাজিক উন্নয়নে উন্নত পরিবহণ সেবার বিকল্প নেই। এ লক্ষ্যে সরকার দেশব্যাপী ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-ময়মনসিংহ হাইওয়েকে ফোর লেনে উন্নীত করা হয়েছে। বাস্তবায়িত হচ্ছে ঢাকা এক্সপ্রেস এলিভেটেড হাইওয়ে, মেট্রোরেল, বাস রেপিড ট্রানজিট এর মতো মেগা প্রকল্প। নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মাসেতুর ৬০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। এছাড়াও অন্যান্য মহাসড়কসমূহ চার বা তদূর্ধ্ব লেনে উন্নীতকরণ, ফ্লাইওভার এবং ওভারপাস নির্মাণ, ট্রাফিক সাইন ও রোড মার্কিং স্থাপন, মহাসড়কের পাশে বিশ্রামাগার নির্মাণ, চালকদের প্রশিক্ষণসহ নানামুখী উদ্যোগ ও কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এর ফলে দেশের পরিবহণ সেক্টরে নতুন দিগন্তের সূচনা হয়েছে যা দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নেও ব্যাপক ভূমিকা রাখছে। 
দেশের সড়ক অবকাঠামোর উন্নয়নের সাথে সাথে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরি। সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতকল্পে পরিবহণ মালিক, শ্রমিক, যাত্রী, পথচারী নির্বিশেষে সকলের এ সংক্রান্ত আইন ও বিধিবিধান জানা এবং তা মেনে চলা আবশ্যক। এর মাধ্যমে অনাকাক্সিক্ষত সড়ক দুর্ঘটনারোধ করা সম্ভব বলে আমি মনে করি। তাই জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবসে এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘আইন মেনে চলবো, নিরাপদ সড়ক গড়বো’ যথাযথ ও সময়োপযোগী হয়েছে বলে মনে করি। সরকারের সড়ক নিরাপত্তা কার্যক্রমকে টেকসই করতে সংশ্লিষ্ট সকলে নিষ্ঠার সাথে কাজ করে যাবেন- এটাই দেশবাসীর প্রত্যাশা। 
আমি জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস-২০১৮ উপলক্ষে আয়োজিত সকল কর্মসূচির সার্বিক সফলতা কামনা করছি। 
খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।”     
#
হাসান/অনসূয়া/জসীম/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৫৩০ ঘণ্টা 
 
 
 
Todays handout (11).docx Todays handout (11).docx

Share with :

Facebook Facebook