তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ অক্টোবর ২০১৮

তথ্যবিবরণী-30/10/2018

Handout                                                                                                              Number : 3000

The US  Ambassador paid a  farewell call  on the Foreign Minister

Dhaka, October 30 :

The outgoing Ambassador of the United States Mercia Bernicat paid her farewell call on the Foreign Minister Abul Hassan Mahmood Ali at the State Guest House Padma today. The Foreign Minister congratulated her on her successful completion of the tenure in Bangladesh. He expressed deep appreciation of the role the Ambassador played in further deepening the ties between Bangladesh and the USA. The Ambassador also conveyed her gratitude for all the support and cooperation she received from different government agencies including the Ministry of Foreign Affairs during her almost four years long stay in Bangladesh. She highly appreciated the role of the present Government in the socioeconomic development of Bangladesh.  She assured that her Government will keep on continuing the support for Bangladesh in its journey towards progress and prosperity. The  Ambassador also lauded the relentless efforts of the Prime Minister and  stated that under her dynamic leadership, the country has made remarkable  progress and she has given the confidence to her people  too  bring positive changes to their lives.

The Foreign Minister emphasized that the USA should also extend support in resolving the Rohingya issue. The Ambassador reiterated that her Government is paying special attentions to this and will do more to bring a lasting solution. He noted that Bangladesh is engaged in negotiation with Myanmar   and also expressed  hope that international community will keep up the pressure on Myanmar to have  the repatriation process started at the soonest possible time. The recent development taking place with regard to their resettlement in Rakhine was also discussed at length. 

The US Ambassador mentioned that the US government is considering higher investment in energy sector and some big private companies are also showing interest in investment in different sectors. She mentioned that investment from GE or Cocacola companies will act as a big confidence booster for further investment into Bangladesh. The trade volume between the two countries are also showing very positive trends in the last couple of years, she added. She remarked that Bangladesh should aggressively try to   penetrate the US market with products other than garments. She opined that with the continuation  of current  pace of trade  and  investment, the relations between the two countries will be  further cemented.  The Foreign Minister again thanked the Ambassador  for her active role in this and wished her success and good health.

The Ambassador also called on the State Minister for Foreign Affairs Md. Shahriar Alam at his office in the afternoon.

#

Tohidul/Farhana/Parvez/Joynul/2018/2120Hrs

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৯৯৯
৩৭তম বিসিএসের স¦াস্থ্য পরীক্ষা শুরু ১ নভেম¦র

ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
৩৭ তম বিসিএস পরীক্ষা ২০১৬-এর ফলাফলের ভিত্তিতে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসের বিভিন্ন ক্যাডারে নিয়োগের জন্য সাময়িকভাবে নির্বাচিত প্রার্থীদের স¦াস্থ্য পরীক্ষা আগামী ১ নভেম¦র থেকে ১২ নভেম¦র তারিখ পর্যন্ত স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মিটফোর্ড হাসপাতাল, ঢাকা; জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (নিটোর), শের-ই-বাংলানগর, ঢাকা; শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শের-ই-বাংলা নগর, ঢাকা; জাতীয় বক্ষব্যাধি ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, মহাখালী এবং মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হবে।
প্রার্থীদের নামে পর্যায়ক্রমে ডাকযোগে পত্র প্রেরণ করা হচ্ছে। স¦াস্থ্য পরীক্ষার জন্য ১-২৭১১-০০০০-২৬৮১ কোড নম¦রে ট্রেজারি চালান মারফত ৫০ টাকা ফি জমা দিতে হবে।
#
জাহাঙ্গীর/মাহমুদ/পারভেজ/জয়নুল/২০১৮/২০৫৫ঘণ্টা 


তথ্যবিবরণী                                                                                                              নম্বর : ২৯৯৮

একনেকে ২৪ প্রকল্প অনুমোদন
রোহিঙ্গাদের জন্য মাল্টিসেক্টর সহায়তা
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় মাল্টিসেক্টর প্রকল্পসহ ২৪টি উন্নয়ন প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এগুলো বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ২৪ হাজার ৭৪০ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ১৯ হাজার ৩৬১ কোটি ৯৬ লাখ টাকা, বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে ৩০৬ কোটি ৪ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ৫ হাজার ৭২ কোটি ৬৬ লাখ টাকা খরচ করা হবে। আজ রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা যতদিন কক্সবাজারে থাকবেন ততদিন তাদের ভালমন্দ দেখার দায়িত্ব সরকারের। যখন তারা মিয়ানমারে ফেরত যাবেন তখন সেখানকার স্থানীয় বাংলাদেশিরা এসব অবকাঠামোর সুযোগ সুবিধা ভোগ করবেন। কেননা রোহিঙ্গাদের কারণে তারা অনেক কষ্ট ভোগ করছেন। বিশ^ব্যাংক ও এডিবিসহ অনেক সংস্থা ও দেশ অনুদান দিচ্ছে। সরকার তাদের কাছে কৃতজ্ঞ।
মন্ত্রী আরো বলেন, একনেক সভায় ডাকঘরগুলোতে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে ই-কর্মাসসহ বিভিন্ন নতুন কার্যক্রম গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া শহিদ মুক্তিযোদ্ধাদের সমাধিস্থল সংরক্ষণের পাশাপাশি যেখানে গণহত্যা হয়েছে, সেখানকার গণকবরে যারা শায়িত আছেন তাদের নাম খুঁজে বের করে তালিকা লিখতে হবে। যাদের নাম পাওয়া যাবে না, সেখানে লিখতে হবে নাম না জানা আরো শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা। সব পুলিশের জন্য পর্যায়ক্রমে আবাসন ব্যবস্থা করা এবং প্রত্যেক জেলায় একটি করে ১০ তলা ভবন তৈরির নির্দেশনাও দিয়েছেন প্র্রধানমন্ত্রী। 
একেনেকে অনুমোদন পাওয়া প্রকল্পগুলো হচ্ছে : বগুড়া হতে শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন- সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত নতুন ডুয়েলগেজ রেল লাইন নির্মাণ, এটি বাস্তবায়নে খরচ ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৫৭৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা; ঈশ^রদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন রেললাইন নির্মাণ (দ্বিতীয় সংশোধিত), প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ৭৩৭ কোটি ১৮ লাখ টাকা; গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ১ থেকে ৫ নং জোনের অভ্যন্তরীণ রাস্তা, নর্দমা ও ফুটপাত নির্মাণে খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ৫১০ কোটি টাকা; ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন অঞ্চলের ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা, নর্দমা ও ফুটপাত নির্মাণ ও উন্নয়নসহ সড়কের নিরাপত্তা প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৬৯৪ কোটি ৪১ লাখ টাকা; ডিজিএফআইয়ের টেলিযোগাযোগ ও আইসিটি অবকাঠামো, মানবসম্পদ এবং কারিগরি সক্ষমতা উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৭২ কোটি ২৯ লাখ টাকা; মাদানী এভিনিউ থেকে বালু নদী পর্যন্ত মেজর রোড প্রশস্তকরণ এবং বালু নদী থেকে শীতলক্ষ্যা নদী পর্যন্ত সড়ক নির্মাণ (প্রথম পর্ব) প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ২৫৯ কোটি ৮৯ লাখ টাকা; বাংলাদেশ সচিবালয়ে ২০ তলাবিশিষ্ট নতুন অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্পে খরচ ধরা হয়েছে ৪২০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা; কর্ণফুলী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের (তৃতীয় সংশোধিত) খরচ ধরা হয়েছে ৭৯৭ কোটি ৯৪ লাখ টাকা; রাজউক পূর্বাচল ৩০০ ফুট মহাসড়ক হতে মাদানী এভিনিউ-সিলেট মহাসড়ক পর্যন্ত সংযোগ সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৪৫৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা; ডাক অধিদফতরের ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন এবং সম্প্রসারণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৪৭৯ কোটি ৮৬ লাখ টাকা; শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ও অন্যান্য বীর যোদ্ধাদের সমাধিস্থল সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৪৬০ কোটি ৯৮ লাখ টাকা; বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে বাংলাদেশ পুলিশের জন্য ৯টি আবাসিক টাওয়ার নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৯২৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা; ন্যাশনাল একাডেমী ফর অটিজম এন্ড নিউরো ডেভেলপমেন্টাল ডিজএবিলিটিজ (দ্বিতীয় সংশোধিত) প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৪২২ কোটি ৩৪ লাখ টাকা; বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠা প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ১৮৩ কোটি ৯৭ লাখ টাকা; বঙ্গবন্ধু সামরিক জাদুঘর নির্মাণ (সংশোধিত) প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৬৫৫ কোটি ৭৬ লাখ টাকা; ২৩টি জেলায় পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৬৯১ কোটি ৩০ লাখ টাকা; ৯টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৪৩৫ কোটি টাকা; পতেঙ্গায় বিএনএ বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৩৫৮ কোটি ৫৩ লাখ টাকা; স্মলহোল্ডার এগ্রিকালচার কম্পিটিটিভনেস প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৭৮০ কোটি ৩৩ লাখ টাকা; কৃষি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটসমূহের কার্যক্রম শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১১৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা; ঢাকায় বিসিক কেমিক্যাল পল্লী স্থাপন প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ২০১ কোটি ৮১ লাখ টাকা; গাজী ওয়্যারস লিমিটেড শক্তিশালীকরণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ৬৮ কোটি ৯৮ লাখ টাকা; ৫০০-৬০০ মেগাওয়াট এলএনজি বেইজড কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্লান্টের জন্য ফিজিবিলিটি স্টাডি সম্পাদন এবং গ্যাস সঞ্চালন লাইন নির্মাণ প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১৬৯ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ও জরুরিভিত্তিতে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় মাল্টিসেক্টর প্রকল্পের খরচ ধরা হয়েছে ১ হাজার ৫৭ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।
#
তৌহিদুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/২০৪৮ঘণ্টা


তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৯৯৭ 
প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ১৮ নভেম¦র শুরু

ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৮ ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা ২০১৮ এর সময়সূচি প্রকাশ করা হয়েছে।
এ পরীক্ষা আগামী ১৮ নভেম¦র ২০১৮ শুরু হয়ে ২৬ নভেম¦র ২০১৮ শেষ হবে।
বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন পরীক্ষার্থীদের জন্য পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত ৩০ (ত্রিশ) মিনিট বরাদ্দ থাকবে।
পরীক্ষার সময়সূচি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের িি.িফঢ়ব.মড়া.নফ এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের িি.িসড়ঢ়সব.মড়া.নফ ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।
#
সাবের/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/২০২০ঘণ্টা 


তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৯৯৬
দেশের উন্নয়নে একযোগে কাজ করতে হবে 
                     --- জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

কেশবপুর (যশোর), ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সকলকে একযোগে দেশের উন্নয়নে কাজ করতে হবে। 
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক আজ যশোরের কেশবপুর পাবলিক মাঠে ‘সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ’ শীর্ষক সাংস্কৃতিক উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে দেশের বরেণ্য শিল্পীগণ সংগীত পরিবেশন করেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, একটি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্ব এদেশের মুক্তিকামী জনগণ মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিল। তাঁদের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার দায়িত্ব আমাদের সকলের।
অনুষ্ঠানে কেশবপুরের বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিবৃন্দ, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ কেশবপুরের সর্বস্তরের জনগণ অংশগ্রহণ করেন। 
#
মাসুম/মাহমুদ/পারভেজ/জয়নুল/২০১৮/১৯৩০ঘণ্টা   

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ২৯৯৫

উত্তরা ইউনিভার্সিটির সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী
আর্থসামাজিক উন্নয়নে তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে হবে

ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) : 
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, বর্তমান যুগ তথ্যপ্রযুক্তির যুগ। তথ্যপ্রযুক্তির মহাসড়কে বাংলাদেশের অবস্থান সুদৃঢ় করার ক্ষেত্রে তরুণদের অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে। বিশ্বায়নের এই যুগে আধুনিক জ্ঞান ও প্রযুক্তি এবং দক্ষ মানবসম্পদ অপার সম্ভাবনার দরজা খুলে দিয়েছে। দেশের সামগ্রিক আর্থসামাজিক উন্নয়নের জন্য এই সুযোগকে কাজে লাগাতে হবে। আজকের শিক্ষার্থীরাই  সমৃদ্ধ আগামীর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশকে বিশ্বে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করবে। 
শিক্ষামন্ত্রী আজ ঢাকায় বসুন্ধরা কনভেনশন সিটিতে উত্তরা ইউনিভার্সিটির ৬ষ্ঠ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতির প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান সমাবর্তন বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন। উত্তরা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর ড. এম. আজিজুর রহমান, বোর্ড অভ্ স্ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান মোঃ বদরুল ইকবাল এবং উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. ইয়াসমীন আরা লেখা সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। 
নতুন গ্রাজুয়েটদের অভিনন্দন জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অর্জিত শিক্ষা ও জ্ঞান এখন বাস্তব কর্মজীবনে প্রয়োগ করতে হবে। জ্ঞান ও মেধার প্রয়োগে সৃজনশীলতা ও উদ্যোগ বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরো বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে জ্ঞানচর্চা, গবেষণা ও নতুন জ্ঞান অনুসন্ধান করতে হবে। নতুন জ্ঞান সৃষ্টি করতে হবে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সৃষ্ট জ্ঞান আমাদের জাতির মৌলিক ও বিশেষ সমস্যাগুলোর সমাধান দিতে পারে। বিষয় বাছাই, শিক্ষাক্রম উন্নয়ন, শিক্ষাদানের পদ্ধতি অব্যাহতভাবে উন্নত ও যুগোপযোগী করতে হবে। 
উত্তরা ইউনিভার্সিটি সীমিত ব্যয়ে মানসম্পন্ন শিক্ষাদানে সচেষ্ট উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী দেশের বাস্তবতা এবং জনগণের আর্থসামাজিক অবস্থা বিবেচনা করে শিক্ষার্থীদের ভর্তি ও টিউশন ফিসহ সকল প্রকার ব্যয় একটি সীমা পর্যন্ত নির্ধারিত রাখতে উদার দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণের জন্য বেসরকারি ইউনিভার্সিটিগুলোর প্রতি অনুরোধ জানান। 
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে জ্ঞানচর্চা এবং সৃজনশীল ও গবেষণা কর্মকা- দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। এক্ষেত্রে উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা কাজে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে সম্পৃক্ত করে দেশে বিদেশে বিভিন্ন বিষয়ের ওপর আন্তর্জাতিক সম্মেলন, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম ইত্যাদির আয়োজন করে আসছে যা খুবই উৎসাহব্যঞ্জক।
শিক্ষামন্ত্রী কৃতী শিক্ষার্থীদের মাঝে স্বর্ণপদক ও সনদ বিতরণ করেন। 
#

আফরাজুর/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/১৯২০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                              নম্বর : ২৯৯৪
 
গণমাধ্যমকর্মীদের আনন্দ ভাগ করে নিলেন তথ্যমন্ত্রী 
 
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
গণমাধ্যমকর্মী আইন মন্ত্রী সভায় অনুমোদন পাওয়ায় আজ রাজধানীতে জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে গণমাধ্যমকর্মীদের আনন্দ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। 
মন্ত্রীর সাথে এসময় তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, তথ্যসচিব আবদুল মালেক বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) আয়োজিত আনন্দ সমাবেশে যোগ দেন। বিএফইউজে’র সভাপতি মোল্লা জালাল, সাধারণ সম্পাদক শাবান মাহমুদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য, সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরীসহ গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ সমাবেশে যোগ দেন। 
উল্লেখ্য শ্রমিকের অভিধা থেকে মুক্ত করে সাংবাদিকদের গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে অভিহিত করে তথ্যমন্ত্রীর উত্থাপিত গণমাধ্যমকর্মী (চাকুরির শর্তাবলী) আইন, ২০১৮ গত ১৫ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন পায়। 
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এসময় সাংবাদিকদের অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার দেশের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ গণমাধ্যমবান্ধব সরকার। এ আইনের মাধ্যমে পূর্বের নিউজ পেপার এমপ্লয়িজ কন্ডিশন সার্ভিস অ্যাক্ট-১৯৭৪ এবং শ্রম আইনের দ্বন্দ্ব নিরসন হবে এবং সম্প্রচার জগতসহ গণমাধ্যমের সকল কর্মী গণমাধ্যমকর্মী হিসেবেই স্বীকৃতি ও অধিকার পাবে।’ 
তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এসময় গণমাধ্যমের প্রতি শেখ হাসিনার সরকারের আন্তরিকতার কথা পুনরায় স্মরণ করিয়ে দেন। 
তথ্যসচিব আবদুল মালেক তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে সকল গণমাধ্যমকর্মীকে আন্তরিক অভিনন্দন জানান।
#
আকরাম/মাহমুদ/পারভেজ/রেজাউল/২০১৮/১৯২১ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                 নম্বর : ২৯৯৩

 
গোলাম সারওয়ার স্মরণসভায় তথ্যমন্ত্রী 
যাপিত জীবনের সমস্যাকে সরকার উৎখাতের গোলা বানাবেন না
 
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, ‘যাপিত জীবনের সমস্যাগুলোকে কখনই সরকার উৎখাতের কামানের গোলা বানানো উচিত নয়। গণমাধ্যম জীবনের সমস্যা তুলে ধরে কিন্তু তা থেকে রাজনৈতিক ফায়দা লোটা উৎসাহিত করে না। প্রয়াত খ্যাতিমান সাংবাদিক গোলাম সারওয়ার তাঁর কর্মজীবনে এটি প্রতিষ্ঠা করে গেছেন।’
আজ রাজধানীর কাকরাইলে প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) মিলনায়তনে পিআইবি পরিচালনা বোর্ডের সাবেক সভাপতি, দৈনিক সমকালের সাবেক সম্পাদক গোলাম সারওয়ারের স্মরণসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। তিনি এসময় গোলাম সারওয়ারের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ এবং সাংবাদিকতায় একাগ্রভাবে নিয়োজিত জীবনের প্রতি পরম শ্রদ্ধা জানান। 
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘গণমাধ্যমকে গণতন্ত্র ও ডিজিটাল সমাজের সাথে প্রতিনিয়ত খাপ খাওয়াতে হয়। কিন্তু গণতন্ত্র ও গণমাধ্যম কখনোই রাজনীতিতে জঙ্গি-সন্ত্রাসী-রাজাকার-সাইবার অপরাধী থাকার ছাড়পত্র দেয় না।’
যাপিত জীবনের সমস্যাগুলোকে চক্রান্তকারীরা সরকার উৎখাতের কামানের গোলা বানানোর অপচেষ্টা চালায় উল্লেখ করে হাসানুল হক ইনু বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সমুন্নত রেখেই আইন-কানুন প্রণয়ন করে, ফলে চক্রান্তকারীদের অপচেষ্টা সফল হবে না। 
মন্ত্রী এসময় ভারসাম্য বা নিরপেক্ষতার নামে মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকারকে একপাল্লায় মাপা গণমাধ্যমের কাজ নয় বলে স্মরণ করিয়ে দেন। 
প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশের মহাপরিচালক মোঃ শাহ আলমগীরের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় তথ্যসচিব আবদুল মালেক, প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, অভিনেত্রী কবরী সারওয়ার, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, দৈনিক সমকালের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মুস্তাফিজ শফি প্রমুখ গোলাম সারওয়ারের জীবন ও কর্মের ওপর আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন।
#
আকরাম/মাহমুদ/পারভেজ/রেজাউল/২০১৮/১৯২০ ঘণ্টা
 

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ২৯৯২
নাগরিক সুবিধা বাড়াতেই নিবন্ধন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে
                                                                  --- আইনমন্ত্রী

ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক নিবন্ধন পরিদপ্তরের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেছেন, নাগরিক সুবিধা বাড়াতেই নিবন্ধন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে। নিবন্ধন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দীর্ঘদিনের দাবি অনুযায়ী চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে নিবন্ধন পরিদপ্তরকে অধিদপ্তরে উন্নীত করা হয়েছে। ফলে এই প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা আগের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। এই মর্যাদা সমুন্নত রাখার দায়িত্ব অধিদপ্তরের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীর ওপর বর্তেছে। তাই তাদের আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে।
আজ নারায়ণগঞ্জে নবনির্মিত চার তলাবিশিষ্ট রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেক্স উদ্বোধন শেষে এক সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 
আনিসুল হক বলেন, নিবন্ধন অধিদপ্তর ভারত উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন প্রতিষ্ঠান হলেও এটি ছিল চরম অবহেলিত। কিন্তু বিগত প্রায় পাঁচ বছরে অবহেলিত অবস্থাকে পিছনে ফেলে প্রতিষ্ঠানটি অনেক দূর এগিয়ে গেছে। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যেও দূর হয়েছে হতাশা। কারণ নিবন্ধন অধিদপ্তরের উন্নয়নের ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে নবনির্মিত ৪তলা রেজিস্ট্রেশন কমপ্লেক্সটি এর জীবন্ত উদাহরণ। তিনি বলেন, সরকার জনগণকে উন্নত পরিবেশে সেবা প্রদানসহ দলিলাদি উন্নত পরিবেশে সংরক্ষণের লক্ষ্যে সকল জেলা ও উপজেলায় আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত জেলা রেজিস্ট্রি অফিস ও সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ভবন নির্মাণ করে দিচ্ছে। ইতিমধ্যে ১৩০ কোটি ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৮ টি জেলা রেজিস্ট্রি অফিস ও ৪২টি সাব রেজিস্ট্রি অফিস ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া বর্তমানে ৩০৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৪টি জেলা রেজিস্ট্রি অফিস এবং ৯৮টি সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অবশিষ্ট অফিসগুলোতেও আধুনিক ভবন নির্মাণের জন্য পর্যায়ক্রমে প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে।
মন্ত্রী বলেন, নকলনবিশদের প্রতি পৃষ্ঠা লেখার পারিশ্রমিক ১৬ টাকা থেকে ২৪ টাকায় উন্নীত করা হয়েছে এবং তাঁদের দীর্ঘদিনের বকেয়া পারিশ্রমিক পরিশোধ করা হয়েছে। অধিকন্তু নকলনবিশগণ যাতে প্রতিমাসে পারিশ্রমিক পেতে পারেন তার জন্য ২০১৮ সালে প্রয়োজনীয় বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে। সরকার দ্রুততম সময়ে রেজিস্ট্রেশন সেবা প্রদানের লক্ষ্যে প্রতিটি জেলা ও সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছে।  
নিবন্ধন পরিদপ্তরের মহাপরিদর্শক খান মোঃ আব্দুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সংসদ সদস্য এ কে এম সেলিম ওসমান, মোঃ নজরুল ইসলাম বাবু ও হোসনে আরা বেগম এবং জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া বক্তৃতা করেন।
#
রেজাউল/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/১৯১৫ঘণ্টা  

 
তথ্যবিবরণী                                                                                            নম্বর : ২৯৯১
 
 
১০০ টাকা মূল্যমানের প্রাইজবন্ডের ‘ড্র’ আগামীকাল
 
 
 
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
 
১০০ টাকা মূল্যমানের বাংলাদেশ প্রাইজবন্ডের ৯৩তম ‘ড্র’ আগামীকাল ৩১ অক্টোবর সকাল ১১ টায় ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হবে।
 
সিঙ্গেল কমন ‘ড্র’ পদ্ধতিতে প্রাইজবন্ডের ‘ড্র’ অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। প্রাইজবন্ডের প্রতি সিরিজে প্রতি ‘ড্র’ তে ৬,০০,০০০/- (ছয় লাখ) টাকার একটি, ৩,২৫,০০০/- (তিন লাখ পঁচিশ হাজার) টাকার একটি, ১,০০,০০০/- (এক লাখ) টাকার ২টি, ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকার ২টি এবং ১০,০০০/- (দশ হাজার) টাকার ৪০টিসহ মোট ৪৬টি পুরস্কার রয়েছে। 
 
আগামী ১ নভেম¦র জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় ‘ড্র’ এর ফলাফল প্রকাশিত হবে।
 
#
 
রাজিয়া/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/১৮৪৫ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৯৯০

প্রাথমিক শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তি অন্তর্ভুক্ত করতে হবে

                                    -- মোস্তাফা জব্বার

ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর):

          ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার নতুন প্রজন্মকে তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞানসমৃদ্ধ করে গড়ে তুলতে প্রাথমিক শিক্ষায় তথ্যপ্রযুক্তি অন্তর্ভুক্ত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। শিশু, কিশোরদের প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা তথ্যপ্রযুক্তি চর্চার ক্ষেত্রে মাইলফলক উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রোগ্রামিং মেধার বিকাশ ও সৃজনশীলতার ক্ষেত্রকে বিকশিত করে।

          মন্ত্রী আজ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে আইসিটি টাওয়ারের বিসিসি মিলনায়তনে জাতীয় শিশু কিশোর প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা-২০১৮ এর পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

          মন্ত্রী বলেন, ছোটবেলা থেকেই শিশুদের প্রোগ্রামিংয়ের ওপর শিক্ষা দিতে হবে। আমাদের সন্তানেরা অনেক মেধাবী। আমাদের যে প্রজন্মকে এখন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যেতে দেখি, তাদেরকে স্মার্টফোনের ব্যবহার শেখাতে হয় না। তাই তাদের এমন স্থানে নিয়ে যেতে চাই যেন তারা ছোট থেকেই প্রোগ্রামিং জানতে পারে।

          বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষার্থীরা যেন প্রোগ্রামিং, কোডিংসহ তথ্যপ্রযুক্তিতে নিজেদেরকে সমৃদ্ধ করতে পারে এ লক্ষ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৯ হাজার ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে।  উদ্ভাবন ও সৃজনশীলতাকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। তিনি সৃজনশীলতাকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান।

          তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব জুয়েনা আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বিসিসি এর নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব, সেন্টার ফর রিসার্চ এন্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন সাম্‌স ও বিসিসি এর পরিচালক ইনামুল হক।

          শিশুদের তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় আগ্রহী করতে চলতি বছর মার্চ মাস থেকে ১৮০টি স্কুলের শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে দেশব্যাপী শিশু-কিশোর প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে কম্পিউটার কাউন্সিল ও ইয়াং বাংলা । প্রাথমিক ও মাধ্যমিক ২টি গ্রুপে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। দেশের সকল জেলা হতে ৫ হাজারের বেশি প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করে। পরে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক গ্রুপের বিভিন্ন ক্যাটেগরিতে বিজয়ীদের মাঝে ল্যাপটপ, সার্টিফিকেট, এক সেট বই, স্মার্টফোন ও ক্রেস্ট বিতরণ করা হয়।

#

শহিদুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/রেজাউল/২০১৮/1833 ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৯৮৯
রণজিৎ রক্ষিতের মৃত্যুতে সংস্কৃতিমন্ত্রীর শোক 
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
বরেণ্য আবৃত্তি ও নাট্যশিল্পী এবং চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির সহসভাপতি রণজিৎ রক্ষিত (৭১)-এর মৃত্যুতে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। তিনি প্রয়াতের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
মন্ত্রী আজ এক শোকবার্তায় বলেন, ‘বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সভাপতিম-লীর সদস্য রণজিৎ রক্ষিত ছিলেন সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আমার অন্যতম প্রিয় সহযোদ্ধা। তিনি বোধন আবৃত্তি স্কুল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে চট্টগ্রাম তথা বাংলাদেশে আবৃত্তি চর্চা প্রচার ও প্রসারে বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন। বাংলাদেশের মানুষ এ মহান সংস্কৃতিকর্মীকে দীর্ঘদিন স্মরণে রাখবে।’ 
উল্লেখ্য, আজ দুপুর ১২টা ২০মিনিটে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রণজিৎ রক্ষিত মৃত্যুবরণ করেন। গত ২৩ অক্টোবর মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাঁকে চট্টগ্রাম মহানগরীর ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং অবস্থার অবনতি হলে গতকাল রাতে তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
#
ফয়সল/মাহমুদ/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/১৮৩০ঘণ্টা  
তথ্যববিরণী                                                                                                     নম্বর : ২৯৮৮ 
নকশকিাঁথা গ্রামবাংলার ঐতহ্যিরে অনন্য নর্দিশন
                             – রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতমিা
টোকওি, ৩০ অক্টোবর :  
নকশকিাঁথার প্রত্যকে নকশা ও সূতায় মশিে আছে গ্রামবাংলার জীবনযাত্রা, ঐতহ্যি ও প্রাকৃতকি সৌর্ন্দয। বাংলাদশেরে প্রত্যকে গ্রামে মহলিাগণ তাদরে মনরে কল্পনাশক্তকিে সুইসূতার নকশায় অর্পূবভাবে ফুটয়িে তোলনে, জাপানে নযিুক্ত বাংলাদশেরে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতমিা আজ বাংলাদশে দূতাবাস ও জাপানি প্রতষ্ঠিান রসুন আয়োজতি 'বাংলাদশেরে নকশকিাঁথা' র্শীষক এক আলোচনা ও প্রর্দশনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলনে। 
দূতাবাসরে বঙ্গবন্ধু মলিনায়তনে অনুষ্ঠতি আলোচনায় রাষ্ট্রদূত আরো বলনে, নকশকিাঁথা গ্রাম্যজীবনরে প্রতচ্ছিবি এবং তা এখন কাঁথা ছাড়াও বভিন্নি শাড়,ি র্কুতা, গৃহসজ্জা দ্রব্যাদি ইত্যাদি পণ্যে ব্যবহৃত হচ্ছ।ে
অনুষ্ঠানে বাংলাদশেরে নকশী কাঁথা বষিয়ে বস্তিারতি তুলে ধরা হয়। রসুন তাদরে এবং বাংলাদশেে উৎপাদতি নকশকিাঁথা ও নকশকিাঁথা দয়িে প্রস্তুতকৃত দ্রব্যরে প্রর্দশন করনে। 
বাংলাদশেে নযিুক্ত জাপানরে সাবকে রাষ্ট্রদূত মাতসুহরিো হরগিুচ,ি জাপানরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়রে উপপরচিালক চসিাকোনশিতিান,ি জাইকার উপপরচিালক তাকাউকসিুগাওয়ারে ও জাপানি সংস্থা মক্সেট, টাফস, আলফস এবং সুশীল সমাজ ও সাংবাদকি প্রতনিধিগিণ অনুষ্ঠানে উপস্থতি ছলিনে। 
#
 
জামান/অনসূয়া/রজ্জোকুল/আসমা/২০১৮/১৩৩০ ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৯৮৭  
 
ঢাকায় আগামী জানুয়ারির ৪র্থ সপ্তাহে আরসিজি’র আন্তর্জাতিক সম্মেলন  
 
ঢাকা, ১৫ কার্তিক (৩০ অক্টোবর) :
চেয়ার কান্ট্রি হিসেবে আগামী জানুয়ারির ৪র্থ সপ্তাহে দুর্যোগসংক্রান্ত আন্তর্জাতিক পরামর্শক গ্রুপ (আরসিজি) এর ৪র্থ আন্তর্জাতিক সম্মেলন ঢাকায় অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। 
আজ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম এর সভাপতিত্বে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শাহ্ কামাল, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ এম এ হাশিমসহ বিভিন্
Todays handout (8).docx Todays handout (8).docx

Share with :

Facebook Facebook